advertisement
আপনি দেখছেন

মসজিদের দানবাক্স খুলে ১২ বস্তা টাকা পাওয়া গেছে। এখন চলছে টাকাগুলোর গণনা। বিকেল বা সন্ধ্যা নাগাদ জানা যাবে যে, ঠিক কত টাকা দান করা হয়েছে। ঘটনাটি কিশোরগঞ্জের ঐতিহাসিক পাগলা মসজিদের।

pagla mosque taka counting homeপাগলা মসজিদের দানবাক্সে ১২ বস্তা টাকা, চলছে গণনা

আজ শনিবার মসজিদের দানবাক্সগুলো খোলা হলে এসব টাকা পাওয়া যায়। মসজিদটিতে ৮টি দানবাক্স রয়েছে। ৪ মাস ২৬ দিন পর বাক্সগুলো খোলার পর ১২ বস্তা টাকা পাওয়া যায়। এর পর শুরু হয় গণনা। টাকা গণনার কাজ শেষ হতে সারাদিন লেগে যেতে পারে।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, কিশোরগঞ্জের অতিরিক্ত জেলা মাজিস্ট্রেট (এডিএম) ফরিদা ইয়াসমিন টাকা গণনার কাজ তদারকি করছেন। এ ছাড়া উপস্থিত আছেন জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. জুলহাস হোসেন সৌরভ, মো. ইব্রাহীম, মাহামুদুল হাসান, মো. উবায়দুর রহমান সাহেল এবং পাগলা মসজিদের প্রশাসনিক কর্মকর্তা মো. শওকত উদ্দিন ভূঞা প্রমুখ।

pagla mosque taka countingপাগলা মসজিদের দানবাক্সে ১২ বস্তা টাকা, চলছে গণনা

জানা যায়, সাধারণত ৩ মাস পর পর পাগলা মসজিদের দানবাক্সগুলো খোলা হয়। তবে দেশে করোনাভাইরাসের সংক্রমণের কারণে এবার ৪ মাস ২৬ দিন পর মসজিদের দানবাক্সগুলো খোলা হলো। টাকা গণনা শেষে বিকেলে জানানো হবে যে, কত টাকা পাওয়া গেল।

এর আগে সর্বশেষ চলতি বছরের ২৩ জানুয়ারি পাগলা মসজিদের দানবাক্সগুলো খোলা হয়। ওই সময় ২ কোটি ৩৮ লাখ ৫৫ হাজার ৫৪৫ টাকা পাওয়া যায় বলে জানায় মসজিদ কর্তৃপক্ষ। পাশাপাশি স্বর্ণ ও রূপাসহ বেশ কিছু বৈদেশিক মুদ্রাও পাওয়া যায়।