advertisement
আপনি দেখছেন

মহামারির মধ্যে আরও একটি ঈদুল আযহা উদযাপন করছে বাংলাদেশের মানুষ। এদিন কুরবানির গোস্ত গরিবদের মধ্যে বিলিয়ে দিয়েছে সামর্থ্যবানরা। ভারতীয় ডেল্টা ভ্যারিয়েন্টে সবচেয়ে বেশি আক্রান্ত ও মৃত্যুর দিনগুলোর মধ্যেই বিষণ্নতায় উদযাপিত হলো ঈদ। সরকার এরই মধ্যে করোনা প্রতিরোধে যথাসম্ভব ব্যবস্থা নিয়েছে। ঈদ উপলক্ষ্যে স্বাস্থ্য সুরক্ষা যতখানি করা দরকার ততখানিই করার চেষ্টা করেছে সরকার।

eid ul adha bangladesh 2021

রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জনগণকে ঈদের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন। করোনায় জাতীয় ঈদগাহে ঈদের জামায়াত অনুষ্ঠিত হয়নি। রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ বঙ্গভবনে জামায়াতে শরিক হন এবং জাতিকে শুভেচ্ছা জানান।

ঢাকায় বায়তুল মোকাররম জাতীয় মসজিদে সবচেয়ে বড় জামায়াত অনুষ্ঠিত হয়েছে। এ মসজিদে ৫টি জামায়াত অনুষ্ঠিত হয়। প্রথম জামায়াত সকাল ৭টায় অনুষ্ঠিত হয়। এর পর যথাক্রমে ৮টা, ৯টা, ১০টা এবং ১০.৪৫টায় চারটি জামায়াত অনুষ্ঠিত হয়েছে।

ঢাকার বাইরে প্রশাসনের নিয়ম মেনেই ঈদ পালিত হয়েছে। স্বাস্থ্য সুরক্ষা নিশ্চিত করতে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর প্রয়োজনীয় নির্দেশনা দিয়েছে। এবারও দেশের সবচেয়ে বড় ঈদ জামায়াত নরসুন্দার তীরে কিশোরগঞ্জের শোলাকিয়ায় করোনার কারণে হতে পারেনি।

ধর্ম মন্ত্রণালয় থেকে যেসব বিধি পালনের আদেশ দেওয়া হয়েছিল, ঢাকার বাইরে সেসব বিধি মেনেই ঈদ পালিত হয়েছে। শহর, গ্রাম, নগরে চিরাচরিত পশু কোরবানির দৃশ্য দেখা গেছে।

আল্লাহ তায়ালা হযরত ইব্রাহিম আ. এর মাধ্যমে তার পুত্র ইসমাঈলের জান কুরবানীর যে দৃষ্টান্ত বান্দাদের শিখিয়ে দিয়েছেন, সে অনুপ্রেরণা নিয়েই মুসলমানরা পশু কোরবানি দিয়ে থাকে।

ঈদে সরকারের পক্ষ থেকে বিশেষ খানা সরবরাহ করা হয়েছে দুস্থ ও গরিবদের মাঝে। তাছাড়া জেলখানা, আশ্রয়কেন্দ্র ও প্রতিবন্ধীদের জন্য বিশেষ ভোজনের ব্যবস্থা করেছে সরকার।

এদিকে দু্ই ঢাকা সিটি করপোরেশনের পক্ষ থেকে কোরবানীর আবর্জনা সরিয়ে ফেলতে বিশেষ ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। এজন্য ১০টি টিম গঠন করে দেওয়া হয়েছে। ২১-২৪ জুলাইয়ের মধ্যে সব আবর্জনা মুক্ত করা হবে। এছাড়া বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকেও তিনটি কমিটি কাজ করছে।