advertisement
আপনি দেখছেন

কিছুদিন আগে ভারতে রীতিমতো তাণ্ডব চালিয়ে এখন সেখানে কিছুটা স্তিমিত হয়ে এসেছে প্রাণঘাতী করোনাভাইরাস। এবার তাণ্ডব শুরু হয়েছে বাংলাদেশে। সেটা এমনই ভয়াবহ যে, মৃত্যুর হারে ভারতও ছাড়িয়ে গেছে। পরিসংখ্যান বলছে, এদিক থেকে দক্ষিণ এশিয়ার মধ্যে বাংলাদেশের অবস্থান ৩ নম্বরে। অন্যদিকে ভারতের অবস্থান ৬ নম্বরে।

corona 3 web

শনাক্ত হওয়া প্রতি ১০০ জন করোনা রোগীর বিপরীতে কতজন মারা গেলেন সেটাই মৃত্যুর হার। দক্ষিণ এশিয়ার মধ্যে আফগানিস্তানের অবস্থা সবচেয়ে ভয়াবহ। দেশটিতে মৃত্যুর হার ৪ দশমিক ৪ শতাংশ। দ্বিতীয় অবস্থানে থাকা পাকিস্তানে মৃত্যুর হার ২ দশমিক ৩ শতাংশ। এরপরেই বাংলাদেশের অবস্থান- ১ দশমিক ৬৫ শতাংশ। ভারতে ১ দশমিক ৩ শতাংশ।

গত মার্চ মাস থেকেই দেশে করোনাভাইরাসের দ্বিতীয় ঢেউ শুরু হয়। মে মাসের কিছু সময় অবস্থার উন্নতি হলেও তারপর আবার সেটা বাড়তে বাড়তে জুনে এসে কঠিন আকার ধারণ করে। চলতি জুলাই মাসের শুরু থেকে পরিস্থিতি মোড় নেয় ভয়াবহ দিকে। এ সময় থেকেই প্রতিদিনকার সংক্রমণ কমবেশি ১০ হাজার এবং মৃত্যু ২০০ ছাড়িয়েছে।

bd update 8may

এখন পর্যন্ত দেশে একদিনে সর্বোচ্চ আক্রান্তের ঘটনা ঘটেছে গত ১২ জুলাই- ১৩ হাজার ৭৬৮ জন। সর্বোচ্চ মৃত্যুর ঘটনা ঘটেছে গত ১৯ জুলাই- ২৩১ জন। ৯ জুলাই থেকে ২০ জুলাই পর্যন্ত দুদিন ছাড়া প্রতিদিনই মৃত্যু ছিল ২০০-এর ওপর। এই হিসাবের বাইরেও প্রতিদিন নমুনা পরীক্ষার আগেই করোনার উপসর্গ নিয়ে মারা যান শতাধিক।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তর থেকে পাঠানো গতকালের বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, দেশে মরণঘাতী করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে গত ২৪ ঘণ্টায় আরো ২২৮ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়ালো ১৯ হাজার ২৭৪। একই সময়ে দেশে আরো ১১ হাজার ২৯১ জনকে আক্রান্ত হিসেবে শনাক্ত করা হয়েছে। তাতে আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১১ লাখ ৬৪ হাজার ৬৩৫।