advertisement
আপনি দেখছেন

মুসলমানদের ধর্মগ্রন্থ পবিত্র কোরআনের অবমাননা হয়েছে, এই অভিযোগের প্রেক্ষিতে উত্তপ্ত হয়ে ওঠে কুমিল্লা। গতকাল বুধবার সকালের এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে উত্তেজিত জনতা রাস্তায় বেরিয়ে পড়ে। তারা বেশ কয়েকটি মন্দিরে হামলা চালায় এবং আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সঙ্গে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। হামলাকারী সন্দেহে ইতোমধ্যে ৪৩ জনকে আটক করার কথা জানানো হয়েছে।

home minister asaduzzaman khanস্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল

এদিকে, গ্রেপ্তার করা সন্দেহভাজনদের জিজ্ঞাসাবাদ চলছে বলে জানিয়েছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল। কুমিল্লার ঘটনাসহ দেশের আরও কয়েকটি স্থানে যে পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে, সেই প্রেক্ষিতে আজ বৃহস্পতিবার (১৪ অক্টোবর) দুপুরে সচিবালয়ে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর শীর্ষ কর্মকর্তাদের সঙ্গে জরুরি বৈঠকে বসেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী। বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের এই তথ্য জানান তিনি।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেন, উদ্দেশ্যমূলকভাবে একটি স্বার্থান্বেষী মহল এই ঘটনা ঘটিয়েছে। এর পেছনে কারা জড়িত, সেটা বের করে আনতে কাজ করে যাচ্ছে আমাদের তদন্ত সংস্থাগুলো। যাদেরকে ধরা হয়েছে, তাদেরকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। এছাড়া বাকিদেরকেও শিগগিরই গ্রেপ্তার করা হবে। সেই প্রক্রিয়া চলছে।

mondir hazigonjমন্দিরে হামলা

কুমিল্লার ঘটনার পর এর উত্তাপ ছড়িয়ে পড়ে চাঁদপুরের হাজীগঞ্জে। গতকাল রাতে হাজীগঞ্জের বিভিন্ন মন্দিরে হামলা চালায় একদল লোক। এ সময় পুলিশের সঙ্গে তাদের সংঘর্ষ হয়। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে গেলে গুলি করতে বাধ্য হয় পুলিশ। এতে ৩ জনের নিহত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। তবে প্রশাসনের পক্ষ থেকে নিহত হওয়ার কারণ হিসেবে পুলিশের গুলির কথা উল্লেখ করা হয়নি।

এক পর্যায়ে চাঁদপুরের হাজীগঞ্জ হয়ে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে নোয়াখালী এবং চট্টগ্রামে। নোয়াখালীর হাতিয়া এবং চট্টগ্রামের বাঁশখালীতে ‘কোরআন অবমাননা’র অভিযোগে মিছিল বের করে স্থানীয়রা। সেখানেও মন্দিরে হামলার ঘটনা ঘটেছে। পরে পুলিশ মিছিলগুলো ছত্রভঙ্গ করে দেয়। এসব ঘটনাকে কেন্দ্র করে আজ বৃহস্পতিবার সারাদেশে বিজিবি মোতায়েন করা হয়।