advertisement
আপনি দেখছেন

দেশের শীর্ষ মোবাইল ফোন-ভিত্তিক অর্থ স্থানান্তর বা এমএফএস সেবার প্রতিষ্ঠান বিকাশের ‘খরচ কমলো’ বিজ্ঞাপনকে শুভঙ্করের ফাঁকি আখ্যা দেয়া হয়েছে। আজ বুধবার টেলি কনজুমারস অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ, টিক্যাবের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এমনটিই বলা হয়। নানা শর্তে একটি প্রিয় এজেন্ট নম্বরে ক্যাশ আউটে ১৪ টাকা ৯০ পয়সা নেয়ার বিজ্ঞাপনটি ব্যাপক প্রচার করেছে প্রতিষ্ঠানটি।

bkash tcabবিকাশের বিজ্ঞাপন ও টিক্যাব

এ নিয়ে টিক্যাবের আহ্বায়ক মুর্শিদুল হক বলছেন, ‘খরচ কমলো’ বিজ্ঞাপন ব্যাপকভাবে প্রচার করা হলেও এক ক্যালেন্ডার মাসে প্রিয় এজেন্ট বদল করতে না পারা এবং বেঁধে দেয়া ক্যাশ আউট লিমিটের মতো শর্তগুলো হাইলাইট করা হচ্ছে না। এর মাধ্যমে গ্রাহকদের বিভ্রান্ত করা হয়েছে। একই সময়ে বিকাশ অ্যাপে ক্যাশ আউট চার্জ ১৭ টাকা ৫০ পয়সা থেকে ১৮ টাকা ৫০ পয়সায় বাড়ানো হয়।

বিষয়টি নিয়ে টিক্যাব সাধারণ গ্রাহক ও এজেন্টদের সঙ্গে কথা বলেছে উল্লেখ করে বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, তাতে বিজ্ঞাপন দেখে ক্যাশ আউট করে বিভ্রান্ত হওয়ার কথা জানিয়েছেন বেশির ভাগ গ্রাহক। এ নিয়ে এজেন্টদের সঙ্গে বাগবিতণ্ডও হয়েছে অনেক গ্রাহকের। ফলে বিজ্ঞাপনের নিচে ছোট অক্ষরে লেখা শর্তগুলো দেখাতে বাধ্য হন এজেন্টরা।

tcab bkashটিক্যাব ও বিকাশের লোগো

দেশের মোবাইল ব্যাংকিং সেবা নেয়া অধিকাংশ মানুষ নিম্ন-মধ্যবিত্ত হওয়ায় শর্তের এসব মার-প্যাঁচের কারণে বিকাশের অফারের সুফল নিতে পারছেন না। একইভাবে ‘নগদ’-এর ক্ষেত্রে ক্যাশ আউটে ৯ টাকা ৯৯ পয়সা কাটার বিজ্ঞাপন প্রচার করা হলেও বাস্তবতা ভিন্নতর। অ্যাপ দিয়ে ক্যাশ আউট করলে হাজারে ভ্যাটসহ ১১ টাকা ৪৯ পয়সা কেটে নেয়া হচ্ছে। ইউএসএসডিতে ক্যাশ আউটেও ১৪ টাকা ৯৪ পয়সা চার্জ কাটা হয়, উল্লেখ করা হয় বিজ্ঞপ্তিতে।

সত্য গোপন করে বিভ্রান্তিকর এমন বিজ্ঞাপনের প্রচার অবিলম্বে বন্ধের দাবি জানিয়েছেন টিক্যাবের আহ্বায়ক মুর্শিদুল হক। সেইসঙ্গে মোবাইল ব্যাংকিংয়ে ক্যাশ আউট চার্জ কমিয়ে সিঙ্গেল ডিজিটে নামানোর দাবিও করেন তিনি।