advertisement
আপনি পড়ছেন

করোনাভাইরাসের সবশেষ ও সবচেয়ে বিপজ্জনক ভ্যারিয়েন্ট ‘ওমিক্রন’ দক্ষিণ আফ্রিকা থেকে ছড়িয়ে পড়েছে দেশে দেশে, শনাক্তও হয়েছে। এ নিয়ে যুক্তরাষ্ট্র ও যুক্তরাজ্যে বিধিনিষেধ জারি করা হয়েছে। দ্রুত ছড়িয়ে পড়া ভ্যারিয়েন্টটির সংক্রমণ রোধে বিশেষ সতর্কতা জারি করেছে বাংলাদেশের স্বাস্থ্য অধিদপ্তর।

omicron covid 19 virus 1করোনার নতুন ধরন ওমিক্রন টেস্ট

এমন প্রেক্ষাপটে বিদেশ থেকে প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা এবং সভা-সমাবেশ সীমিত করাসহ ৪টি সুপারিশ করেছে জাতীয় কারিগরি পরামর্শক কমিটি। আজ রোববার কমিটির ৪৮তম সভায় এসব সুপারিশ করা হয়। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা, ডব্লিউএউচও’র ‘ভ্যারিয়েন্ট অব কনসার্ন’ ঘােষিত ওমিক্রনের বিস্তার রােধে এখনই তৎপর হতে বলা হয় কমিটির পক্ষ থেকে।

সুপারিশগুলো হলো- ক. দক্ষিণ আফ্রিকা, জিম্বাবুয়ে, নামিবিয়া, বতসােয়ানা ও সােয়াজিল্যান্ডসহ সংক্রমণ ছড়ানো দেশগুলো থেকে যাত্রী বাংলাদেশে প্রবেশ বন্ধ করা। খ. বিগত ১৪ দিন আগে এসব দেশ ভ্রমণ করা ব্যক্তিদের ১৪ দিনের প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টাইনে রাখা, পরীক্ষায় পজিটিভ আসলে আইসোলেশনের ব্যবস্থা করা।

bangladesh government newবাংলাদেশ সরকার, ফাইল ছবি

গ. প্রতিটি ‘পোর্ট অব এন্ট্রি’তে স্ক্রিনিং, সামাজিক সুরক্ষা ব্যবস্থা কঠোরভাবে বাস্তবায়ন করা, স্কুল-কলেজসহ চিকিৎসা সেবা জোরদার করা এবং সভা-সমাবেশে জনসমাগম সীমিত করা। ঘ. উপসর্গ দেখা দিলে করোনা পরীক্ষায় জনগণকে উৎসাহিত করতে বিনামূল্যে পরীক্ষার ব্যবস্থা করা।

এদিকে, করোনার এই ভ্যারিয়েন্টটি নিয়ে দক্ষিণ আফ্রিকার সঙ্গে যোগাযোগ স্থগিত করার ঘোষণা দিয়েছে বাংলাদেশ। বিশ্বজুড়ে নতুন করে আতঙ্ক দেখা দেয়ায় সুইজারল্যান্ডের জেনেভায় না গিয়ে মাঝ পথ থেকে দেশে ফিরছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক। তিনি জানান, দেশের সকল এয়ারপোর্ট, ল্যান্ডপোর্টের প্রবেশপথে স্ক্রিনিং আরো জোরদার করার নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। মাস্ক পরাসহ স্বাস্থ্যবিধি কঠোরভাবে মেনে চলতে সবাইকে উদ্বুদ্ধ করার জন্য জেলা প্রশাসনকে নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।

দক্ষিণ আফ্রিকাসহ ৬টি দেশে করোনার নতুন একটি ভ্যারিয়েন্ট বা ধরন শনাক্ত করা হয়েছে। এটির নাম B.1.1.529, যা ভাইরাসটির প্রতিরোধক টিকাকে পরাজিত করতে সক্ষম বলে মনে করা হচ্ছে। অন্য দেশগুলো হলো- নামিবিয়া, লেসোথো, বতসোয়ানা, এসওয়াতিনি ও জিম্বাবুয়ে। সবশেষ ইতালি ও জার্মানিসহ আরো কয়েকটি দেশের নতুন ধরনটি শনাক্ত হয়েছে বলে জানা যাচ্ছে।

প্রসঙ্গত, এর আগে শনাক্ত হওয়া করোনার সবচেয়ে বিপজ্জনক ভ্যারিয়েন্ট হিসেবে বিবেচনা করা হতো ডেল্টা বা ভারতীয় ভ্যারিয়েন্টকে। এটি চলমান মহামারিকে দ্রুত ও ব্যাপকতর করেছে বলে মনে করেন বিশেজ্ঞরা।