advertisement
আপনি দেখছেন

করোনাভাইরাসের আঘাত লেগেছে সব দেশের অর্থনীতিতেই। নানা উপায়ে এই দুঃসময় অতিক্রম করার চেষ্টা করছে দেশগুলো। দেশে দেশে বিপুল হারে কর্মী ছাঁটাই হচ্ছে বেসরকারি খাতে। এই ধারাবাহিকতায় মধ্যপ্রাচ্যের প্রায় সব দেশ ঘোষণা দিয়েছিল, বাংলাদেশি শ্রমিকসহ তারা বিদেশি শ্রমিকদেরকে দেশে পাঠিয়ে দেবে। এমন আশঙ্কার মধ্যে আজ এক ভিডিও বার্তায় পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশি শ্রমিকদের ফেরত পাঠাচ্ছে না মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলো। আমাদের অনুরোধের প্রেক্ষিতে তারা এমনটা জানিয়েছে।

a k abdul momen 1পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. আব্দুল মোমেন

পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. আব্দুল মোমেন বলেন, মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলো করোনাভাইরাস প্রাদুর্ভাবের শুরু থেকেই শ্রমিক পাঠানোর কথা বলে আসছিল। আমরাও চেষ্টা করে যাচ্ছিলাম, শ্রমিকরা যেন না ফেরে। প্রত্যেক দেশের সরকারের সঙ্গে আলাদা আলাদা আলাপ হয়েছে। শ্রমিক না পাঠানোর জন্য তাদেরকে আমরা বিশেষভাবে অনুরোধ করেছি। অনেকেই সেই অনুরোধে ইতিবাচক সাড়া দিয়েছেন। আমরা আরো চেষ্টা করে যাব।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী আরো বলেন- মালয়েশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী শ্রমিক পাঠাবেন না বলে কথা দিয়েছেন এবং বলেছেন, যাদের ভিসার মেয়াদ শেষ হয়ে গেছে, তাদের মেয়াদ বাড়ানো হবে। এমনকি যাদের বিমানের টিকিট কাটা হয়ে গেছে তাদের ব্যাপারেও ইতিবাচক বিবেচনা করবেন বলে কথা দিয়েছেন মালয়েশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী।

bd worker singapore mask

সংযুক্ত আরব আমিরাত ভারতের প্রায় দুই লাখ শ্রমিককে ফেরত পাঠাচ্ছে। পাকিস্তানের শ্রমিকরাও ফেরত আসছে একইভাবে। বাংলাদেশের শ্রমিকদেরকেও পাঠানোর সব প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছিল দেশটি। পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. আব্দুল মোমেন বলেন, এমন পরিস্থিতিতে আমি বাংলাদেশি শ্রমিকদের ফেরত না পাঠিয়ে কৃষিকাজে লাগানোর অনুরোধ করেছি। তাই তারা শ্রমিক পাঠানোর সিদ্ধান্ত প্রত্যাহার করেছেন।

sheikh mujib 2020