advertisement
আপনি দেখছেন

সৌদি আরবে অবস্থানরত বাংলাদেশিরা দেশটিতে নির্ধারিত পেশার বাইরে আর কোনো রাজনৈতিক বা অরাজনৈতিক তথা সামাজিক, পেশাজীবী সংগঠন কিংবা সাংবাদিকতা করতে পারবেন না। সম্প্রতি দেশটিতে অবস্থিত বাংলাদেশি দূতাবাস ও কনস্যুলেট অফিসের কর্মকর্তাদের ডেকে এমন নির্দেশনা দিয়েছে সৌদি পররাষ্ট্র, স্বরাষ্ট্র এবং শ্রম মন্ত্রণালয়ের প্রতিনিধিরা। এই নির্দেশনার পরও উল্লিখিত সংগঠন বা সংস্থার সঙ্গে কারো সংশ্লিষ্টতা প্রমাণ হলে তার বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা ও জরিমানা এমনকি দেশে ফেরত পাঠিয়ে দেওয়া হবে বলে জানানো হয়। বিষয়টি সৌদিতে অবস্থানরত বাংলাদেশিদের জানিয়ে দিতেও বলা হয় গত ২৬ জুলাইয়ের ওই বৈঠকে। এর পরই বাংলাদেশ দূতাবাস থেকে এ সংক্রান্ত বিজ্ঞপ্তি জারি করা হয়।

bangladesh embassy in saudi arabiaসৌদিতে বাংলাদেশ দূতাবাস

জানা যায়, শ্রম ভিসায় সৌদি আরব গিয়ে অনেক বাংলাদেশি সাংবাদিকতার সঙ্গে জড়িয়ে যান তথা বাংলাদেশে খবর পাঠান- এমন অভিযোগের প্রমাণসহ দেশটির উল্লিখিত মন্ত্রণালয়ের প্রতিনিধিরা বাংলাদেশি কর্মকর্তাদের বলেছেন, প্রেস ভিসা ছাড়া কেউ দেশটিতে সাংবাদিকতা করতে পারবে না। এ ছাড়া অভিবাসীদের উল্লিখিত বিষয়ের সঙ্গে সম্পৃক্ততা সৌদি আইনে নিষিদ্ধ জানিয়ে বাংলাদেশ দূতাবাস প্রতিনিধিদের সতর্ক করা হয় যে, মিশনের কেউ যেন এসব কর্মকাণ্ডে কাউকে আশ্রয়-প্রশ্রয় বা সমর্থন কিংবা অনুমোদন না দেয়।

বিষয়টি জরুরি ভিত্তিতে প্রবাসী বাংলাদেশিদের নজরে আনতে সতর্কতা সংক্রান্ত এক গণবিজ্ঞপ্তি জারি করেছে বাংলাদেশি দূতাবাস। এতে বলা হয়, সৌদি আরবে অবস্থানরত বাংলাদেশি অভিবাসীদের জানানো যাচ্ছে যে, কিছু অভিবাসী বিভিন্ন নামে বাংলাদেশ-ভিত্তিক রাজনৈতিক, অরাজনৈতিক ও অন্যান্য বিভিন্ন সামাজিক সংগঠনের সঙ্গে জড়িত থেকে কার্যক্রম পরিচালনা করছেন, যা দেশটির সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের দৃষ্টিগোচর হয়েছে। এমতাবস্থায় গত ২৬ জুলাই অবৈধ এসব কর্মকাণ্ডের বিরুদ্ধে সৌদি সরকারের কঠোর মনোভাবের বিষয়টি জানাতে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূতকে সৌদি পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে আমন্ত্রণ জানানো হয়।

circular bd ambassy saudia arabiaদূতাবাসের বিজ্ঞপ্তি

এর পর সৌদি পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের উপমন্ত্রী রাষ্ট্রদূত তামিম বিন মাজেদ আল দোসারির নেতৃত্বে দেশটির স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়, ইমিগ্রেশন ডিপার্টমেন্ট ও অন্যান্য নিরাপত্তা এজেন্সির প্রতিনিধিদলের সমন্বয়ে গঠিত একটি উচ্চ পর্যায়ের কমিটির সঙ্গে বৈঠক হয়। ওই বৈঠকে জানানো হয়, কিছু সংখ্যক বাংলাদেশি অভিবাসী তাদের ইকামায় বর্ণিত পেশার বাইরে বিভিন্ন রাজনৈতিক, সামাজিক অথবা এ ধরনের অন্যান্য কর্মকাণ্ড পরিচালনা করছেন, সৌদি আইনে যা সম্পূর্ণ বেআইনি।

ওই বৈঠকে- বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ করা হয়- সৌদি উপমন্ত্রী সতর্ক করে বলেন, দেশটিতে থাকা বাংলাদেশিদের সংশ্লিষ্ট পেশার বাইরে কোনো প্রকার রাজনৈতিক, সামাজিক কিংবা এ ধরনের অন্য যেকোনো কর্মকাণ্ড পরিচালনা অথবা সাংবাদিক সম্মেলন করার কোনো সুযোগ নেই। সৌদি আরবের আইন অনুযায়ী এ ধরনের কর্মকাণ্ড গুরুতর অপরাধ হিসেবে বিবেচিত।

দূতাবাসের গণবিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, বৈঠকে সৌদি প্রতিনিধিরা জানান, এর পরও কেউ এসব কর্মকাণ্ডে জড়িত হলে তা রাষ্ট্রবিরোধী কার্যকলাপের আওতায় দণ্ডনীয় অপরাধ বলে গণ্য হবে। অপরাধ প্রমাণ হলে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিকে জেল-জরিমানার সম্মুখীন হতে হবে। সেইসঙ্গে তাকে স্বল্প সময়ের মধ্যে নিজ দেশে ফেরত পাঠানো হবে।

দেশটিতে থাকা বাংলাদেশ দূতাবাস এবং কনস্যুলেটকে এ ধরনের কর্মকাণ্ডে স্বীকৃতি, অনুমোদন, আশ্রয়-প্রশ্রয় প্রদান থেকে সম্পূর্ণ বিরত থাকার অনুরোধ করা হয়েছে জানিয়ে বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, সৌদি আরবের তথ্য মন্ত্রণালয়ের অনুমতি বা প্রেস ভিসা ছাড়া যেসব বাংলাদেশি অভিবাসী সাংবাদিকতা করছেন কিংবা সাংবাদিক হিসেবে পরিচয় দিচ্ছেন এবং ঢাকায় সংবাদ পাঠাচ্ছেন, সম্পূর্ণ বেআইনি এবং গুরুতর দণ্ডনীয় অপরাধ। এক্ষেত্রেও সংশ্লিষ্টদের জেল-জরিমানাসহ দেশে প্রত্যাবর্তনের সম্মুখীন হতে হবে বলে জানানো হয়।

গণবিজ্ঞপ্তিতে আরো বলা হয়, উল্লিখিত বিষয়গুলো বাংলাদেশি অভিবাসীদের অবহিত করতে সৌদি পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় নির্দেশ প্রদান করেছে, যাতে সবাই যথাযথভাবে তা মেনে চলতে পারে। বিজ্ঞপ্তি প্রকাশের পরও কেউ উল্লিখিত অপরাধ করলে দূতাবাস বা কনস্যুলেট তার কোনো দায়ভার গ্রহণ করবে না। আর তাই, সৌদি কর্তৃপক্ষের নির্দেশনাসমূহ যথাযথভাবে মেনে চলতে প্রবাসীদের প্রতি অনুরোধ জানাচ্ছে বাংলাদেশ দূতাবাস।

sheikh mujib 2020