advertisement
আপনি দেখছেন

সাত বছর আগে নিখোঁজ হয়েছিলেন এক ব্যক্তির স্ত্রী। সে সময় ধারণা করা হয়, যৌতুকের জন্য নিজের স্ত্রীকে হত্যা করে গুম করে ফেলেন ওই ব্যক্তি। এমনকি এ অভিযোগে এক মাস জেলও খাটেন তিনি। সেই ‘মৃত’ স্ত্রীকেই নিখোঁজের সাত বছর পর প্রেমিকের সঙ্গে খুঁজে পেলেন ওই ব্যক্তি।

alien symbol

ঘটনাটি ভারতের উড়িষ্যার। ভুক্তোভোগী ওই ব্যক্তির নাম অভয় সুত্র। সম্প্রতি আটকের পর গত সোমবার তার স্ত্রী ইতিশ্রী মহারানা ও তার প্রেমিক রাজীবকে আদলতে পাঠানো হয়েছে বলে জানিয়েছেন রাজ্যের পাতকুরা থানার এক পুলিশ কর্মকর্তা।

আনন্দবাজার পত্রিকার এক প্রতিবেদনে বলা হয়, ২০১৩ সালের ৭ ফেব্রুয়ারি বিয়ে হয় অভয় ও ইতিশ্রীর। বিয়ের দুই মাসের মধ্যেই শ্বশুরবাড়ি থেকে পালিয়ে যান ওই নারী। বিভিন্ন জায়গায় খোঁজার পরও স্ত্রীকে খুঁজে না পেয়ে অবশেষে ওই বছরের ২০ এপ্রিল পাতকুরা থানায় নিখোঁজের অভিযোগ জানান অভয়।

এরপর ওই বছরের মে মাসেই পুলিশের কাছে অভয়ের বিরুদ্ধে অভিযোগ জানান ইতিশ্রীর বাবা প্রহ্লাদ মহারানা। অভিযোগে বলা হয়, অভয় যৌতুকের জন্য তার মেয়েকে অত্যাচার করে মেরে ফেলেছে। এ অভিযোগের প্রেক্ষিতে অভয়কে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। স্ত্রী হত্যার দায়ে এক মাস জেল খেটে জামিনে বের হয় উড়িষ্যার ওই যুবক।

কিন্তু জেল থেকে বের হওয়ার পর অভয়ের মনে সন্দেহ হয়, তার স্ত্রী অন্য কারোর সঙ্গে পালিয়ে গেছে। এবং ঘটেও তাই। স্ত্রীর সন্ধান করতে গিয়ে অভয় খবর পান, তার স্ত্রী প্রেমিকের সঙ্গে পিপিলিতে বসবাস করছেন। পরে পুলিশের সহায়তায় ইতিশ্রী ও তার প্রেমিককে পিপিলি থেকে আটক করা হয়।

পাতকুরার পুলিশ জানায়, বিয়ের দুই মাস পর ইতিশ্রী তার প্রেমিকের সঙ্গে গুজরাট পালিয়ে যান এবং রাজীব নামের ওই যুবককে বিয়ে করেন। সেখানেই তারা সাত বছর ধরে সংসার করছিলেন। তাদের দাম্পত্য জীবনে এক ছেলে ও এক মেয়ে রয়েছে। সম্প্রতি তার গুজরাট থেকে উড়িষ্যার পিপিলিতে ফেরেন।

স্ত্রীর এমন কুকীর্তির বিষয়ে অভয় বলেন, পুলিশ সন্ধান না পাওয়ায় তিনি নিজেই স্ত্রীর খোঁজ শুরু করেন। অবশেষে স্ত্রীকে খুঁজে পাওয়ায় তিনি নিজেকে নির্দোষ প্রমাণ করতে পেরেছেন। এতে তিনি খুবই খুশি।

তবে আদালত ইতিশ্রী ও তার প্রেমিককে কী সাজা দিলো সে সম্পর্কে প্রতিবেদনে কিছু জানানো হয়নি।