advertisement
আপনি দেখছেন

বিশ্বে প্রথমবারের মতো ল্যাব বা গবেষণাগারে তৈরি ‘মুরগির মাংস’ বাজারজাত করার অনুমতি দিয়েছে সিঙ্গাপুর। কৃত্রিম এই মাংস তৈরি করেছে মার্কিন স্টার্টআপ কোম্পানি ‘ইট জাস্ট’ ল্যাব।

chicken meat made in labল্যাবে তৈরি ‘মুরগির মাংস’

বিবিসির খবরে বলা হয়, নতুন এই ‘ক্লিন মিট’ বিক্রির জন্য অনুমতি চাওয়া হয়েছিল সিঙ্গাপুর সরকারের কাছে। তা অনুমোদন দেয়া হয়েছে, যা প্রথমে ব্যবহৃত হবে নাগেটে। কবে নাগাদ এই মাংস বাজারে আসছে, তা জানায়নি ইট জাস্ট।

বর্তমানে বিভিন্ন দেশের সুপার শপ এবং রেস্তোরাঁয় উদ্ভিজ্জ মাংস ‘বিয়ন্ড মিট’ ও ‘ইমপসিবল ফুড’ পাওয়া যায়। তা থেকে ইট জাস্ট উদ্ভাবিত মাংস একেবারেই আলাদা। এটি ল্যাবে প্রাণীর পেশিকোষ থেকে তৈরি হয়।

এটিকে ‘বৈশ্বিক খাদ্য শিল্পের যুগান্তকারী’ ঘটনা হিসেবে বর্ণনা করেছে ইট জাস্ট। সিঙ্গাপুরকে অনুসরণ করে বিশ্বের অন্য দেশও তাদের এ মাংস বিক্রির অনুমতি দিবে বলে আশা করছে প্রতিষ্ঠানটি।

chicken meat made in lab 1ল্যাবে তৈরি ‘মুরগির মাংস’

বলা হচ্ছে, নানা কারণে সারা বিশ্বে প্রচলিত মাংসের বিকল্পের চাহিদা বেড়েছে। এ জন্য দুই ডজন প্রতিষ্ঠান ল্যাবে কৃত্রিম মাছ, গরু ও মুরগির মাংস উৎপাদনের চেষ্টা করছে।

লন্ডনের বার্কলেজ ব্যাংক বলছে, এখন সারা বিশ্বের ১ দশমিক ৪ ট্রিলিয়ন ডলারের প্রচলিত মাংস শিল্প রয়েছে। আগামী দশকে বিকল্প মাংসের বাজার প্রায় ১৪০ বিলিয়ন ডলারে পৌঁছাতে পারে, যা এই শিল্পের ১০ ভাগ।