advertisement
আপনি পড়ছেন

সরকারি স্কিমের টাকা পেতে লজ্জাজনক এক ঘটনা ঘটিয়েছে সহোদর দুই ভাইবোন। সরকারি ফান্ডের ওই টাকা প্রাপ্তিতে নানা বাধ্যবাধকতা থাকায় ভারতের উত্তরপ্রদেশের ফিরোজাবাদে গণবিবাহের আসরে নিজের বোনকেই বিয়ে করে বসেন এক যুবক। বিষয়টি নিয়ে রাজ্যজুড়ে তীব্র চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে।

mass marrigeউত্তরপ্রদেশের গণবিবাহ, ফাইল ছবি

জানা গেছে, উত্তরপ্রদেশে মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথের নামে রয়েছে বিশেষ এক স্কিম। সামুহিক বিবাহ যোজনার এই স্কিম অনুযায়ী গণবিবাহে বিয়ে করা দম্পতিদের ৩৫ হাজার টাকা করে দেওয়া হয় প্রশাসনের পক্ষ থেকে। এর মধ্যে ২০ হাজার টাকা নববধূর ব্যাংক অ্যাকাউন্টে জমা করা হয়। বাকি অর্থের বিভিন্ন উপহার হিসেবে দেওয়া হয়। এগুলোর মধ্যে বেশিরভাগই সাংসারিক কাজে ব্যবহৃত নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিস।

অভিযোগ পাওয়া গেছে, এই টাকা ও উপহার সামগ্রী পেতে নিজের বোনকেই বিয়ে করেন এক যুবক। ফিরোজাবাদের টুন্ডলা ব্লক অফিসে গণবিবাহের আয়োজন করা হয়েছিল। সেখানেই পাত্র ও পাত্রী হিসেবে নিজেদের নাম লেখায় দুই সহোদর। গত ১১ ডিসেম্বর মোট ১০২ জন যুবক-যুবতীর বিয়ে হয়। তার মধ্যেই ছিলেন উল্লেখিত ভাই-বোন। বিয়ের প্রক্রিয়া শেষে অন্যদের মতো তারাও টাকা ও উপহার পেয়ে যান।

marrigeউত্তর প্রদেশ, ভারত

বিষয়টি তখন পর্যন্ত গোপনই ছিল। তবে বিয়ের ছবি প্রকাশ্যে আসতেই বিষয়টি জানাজানি হয়ে যায়। গ্রামের বাসিন্দারা স্বামী-স্ত্রী হিসেবে ভাই-বোনের ছবি দেখে চমকে ওঠেন। বিষয়টি তারা স্থানীয় প্রশাসনকে জানান। অভিযোগের সত্যতা পেয়ে এরইমধ্যে যুবকের আধার কার্ড বাজেয়াপ্ত করা হয়েছে। স্থানীয় থানায় যুবকের বিরুদ্ধে প্রতারণার মামলা দায়ের করা হয়েছে। বিয়েতে যে উপহার তাদের দেওয়া হয়েছিল সেগুলোও ফিরিয়ে নেওয়া হয়েছে।

এ বিষয়ে টুন্ডলার ব্লক ডেভলপমেন্ট অফিসার নরেশ কুমার জানান, অভিযুক্ত ভাই-বোনের বিরুদ্ধে উপযুক্ত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

উল্লেখ্য, এর আগে প্রায় একই ধরনের ঘটনা ঘটেছিল পাঞ্জাবে। অস্ট্রেলিয়ার ভিসা পাইয়ে দিতে নিজের বোনকে বিয়ে করেছিলেন মনপ্রীত সিং নামের এক যুবক। ২০১২ সাল থেকে অস্ট্রেলিয়া থাকতেন মনপ্রীত। কিন্তু তার বোন কিছুতেই বিদেশে যাওয়ার ভিসা পাচ্ছিলেন না। শেষে বিয়ে করে বোনকে অস্ট্রেলিয়া নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করেন মনপ্রীত।