advertisement
আপনি দেখছেন

হাদিস উল্লেখ আছে, নামাজ জান্নাতের চাবি। আর নামাজের চাবি হলো পবিত্রতা। পবিত্রতার এক অর্থ হলো অজু করা। পবিত্র কোরআনে আল্লাহ তায়ালা বলেন, ‘হে ইমানদারগণ! তোমরা যখন নামাজের জন্য দাঁড়াও তখন তোমাদের মুখ, হাত ও পা ধুয়ে নাও আর মাথা মাসেহ করে নাও।’ অন্যসব ইবাদতের মত অজুও করতে হবে রাসুলের দেখানো নিয়মে। আসুন হাদিসের ক্যানভাসে দেখে নিই প্রিয় নবী (সা.) কীভাবে অজু করতেন?

azu

একদিন হজরত উসমান (রা.) কয়েকজন সাহাবি এবং তাবেয়িকে রাসুল (সা.) কীভাবে অজু করতেন তা দেখাচ্ছিলেন। বুখারি ও মুসলিম শরিফে হজরত হুমরান (রা.) থেকে হাদিসটি বর্ণিত হয়েছে।

عن حمران رضي الله عنه أن عثمانَ دعا بوضوء، فغسل كفَّيه ثلاث مرات، ثم تمضمض واستنشق واستنثَر، ثم غسل وجهَه ثلاث مرات، ثم غسل يده اليمنى إلى المِرْفَق ثلاث مرات، ثم اليسرى مثل ذلك، ثم مسح رأسه، ثم غسل رجلَيْه؛ اليمنى إلى الكعبين ثلاث مرات، ثم اليسرى مثل ذلك، ثم قال: رأيتُ رسول الله صلى الله عليه وسلم توضَّأ نحو وضوئي هذا؛ متفق عليه.

হজরত হুমরান (রা.) বলেন, একদিন আমাদের নেতা হজরত উসমান (রা.) অজুর পাত্র নিয়ে আমাদের ডাকলেন। আমরা রাসুল (সা.) কীভাবে অজু করতেন তা দেখার জন্য উসমান (রা.) এর চারপাশে ভীড় জমালাম। প্রথমে তিনি দু’ হাতের কব্জি পর্যন্ত ধুলেন। তারপর তিনি কুলি করলেন। নাকে পানি দিলেন। পুরো মুখ ভালোভাবে ধুয়ে ফেললেন। তারপর দুই হাতের কনুই পর্যন্ত ধুলেন। মাথা মাসাহ করলেন এবং সর্বশেষ তিনি পায়ের টাখনু পর্যন্ত ধুলেন। প্রতিটি অঙ্গ তিনি তিনবার ধুয়েছেন। শুধু মাথা একবার মাসাহ করেছেন। অজু শেষে হজরত উসমান (রা.) বললেন, আমি রাসুল (সা) কে এভাবেই অজু করতে দেখেছি, যেভাবে এখন তোমাদের অজু করে দেখালাম। বুখারি, হাদিস নম্বর ১৫৯; মুসলিম, হাদিস নম্বর ২২৬।

নবী (সা.) এর মাথা মাসাহ সম্পর্কে হজরত আবদুল্লাহ ইবনে জায়েদ ইবনে আসেম (রা.) বলেন,

ومسح رسول الله صلى الله عليه وسلم برأسه، فأقبل بيدَيْه وأدبر؛ متفق عليه

মাথা মাসাহ করার সময় নবীজি (সা.) দুহাত সামানে থেকে পেছনে নিতেন। আবার পেছন থেকে সামনে আনতেন। বুখারি, হাদিস নম্বর ১৮৬; মুসলিম, হাদিস নম্বর ২৩৫।

আবু দাউদ শরিফে হজরত আবদুল্লাহ ইবনে আমর ইবনে আস (রা.) থেকে অতিরিক্ত এতটুকু বর্ণিত হয়েছে যে-

ثم مسح برأسه وأدخل إصبعَيْه السباحَّتينِ في أذنيه، ومسح بإبهامَيْه ظاهر أذنيه

রাসুল (সা.) মাথা মাসাহ করার সময় দু’হাতের শাহাদাত আঙ্গুল দু’কানের ছিদ্রে ঢুকালেন এবং দুটি বৃদ্ধাঙ্গুল দিয়ে কানের উপরে মাসাহ করলেন। সুনানে আবু দাউদ, হাদিস নম্বর ৯১৩৫; বুলুগুল মারাম, হাদিস নম্বার ৩৬।