advertisement
আপনি দেখছেন

কোভিড-১৯ ভাইরাসে আক্রান্ত রোগীদের ওপর প্লাজমা থেরাপি প্রয়োগ করে বেশ সফলতা পাওয়া যাচ্ছে বলে দাবি করছেন চিকিৎসকরা। এই পদ্ধতিতে করোনা আক্রান্ত ব্যক্তি সুস্থ হওয়ার পর তার রক্তরস নিয়ে করোনারোগীর শরীরে পুশ করা হয়। এভাবে একজনের শরীরে প্লাজমা অন্যের শরীরে পুশ করানোর ব্যাপারে ইসলামী শরিয়তের বিধান কী? প্লাজমা দেয়ার ক্ষেত্রে কী ধরনের বিধি-নিষেধ মেনে চলা জরুরি আসুন তা জেনে নেই।

corona 1

ইসলামী শরিয়ত বিশেষজ্ঞরা বলছেন, প্লাজমা থেরাপি পুরোপুরি নতুন কোনো পদ্ধতি নয়, আগেও বড় বড় ভাইরাসজনিত রোগ ইবোলা, সার্সসহ পৃথিবীতে ছড়িয়ে পড়া বিভিন্ন ভাইরাসে বহু মানুষ আক্রান্ত হওয়ার পর এই প্লাজমা থেরাপি প্রয়োগ করা হয়েছে। প্লাজমা থেরাপির বিধান জানতে হলে আগে জানতে হবে প্লাজমা থেরাপি কী।

প্লাজমা থেরাপি

প্লাজমা থেরাপি হলো- কোনো ব্যক্তি ভাইরাসজনিত রোগ থেকে যখন সুস্থ হয়ে উঠার পর তার শরীরে একটি রোগ প্রতিরোধ শক্তি তৈরি হয়। মেডিকেল সাইন্সের ভাষায় এই প্রতিরোধ শক্তিকে বলা হয় অ্যান্টিবডি। সুস্থ হওয়া ব্যক্তির অ্যান্টিবডি করোনাক্রান্ত ব্যক্তির শরীরে প্রতিরোধ শক্তি তৈরি করে। এতে রোগীর সুস্থ হওয়ার সম্ভাবনা বাড়ে।

প্লাজমা দেওয়া বা নেওয়া কি জায়েজ

শরীয়তের দৃষ্টিতে প্লাজমা দেওয়া ও নেওয়া জায়েজ। এটি অন্যকে রক্ত দেওয়া বা অন্যের শরীর থেকে রক্ত নেওয়ার মতোই একটি বিষয়। ইসলামী আইনজ্ঞরা বলেন, রক্ত দেওয়া যেমন জায়েজ, তেমনি প্লাজমা দেওয়াও জায়েজ।

প্লাজমা দেওয়া-নেওয়ায় কি কোনো বিধি-নিষেধ আছে

প্লাজমা দেওয়া ও নেওয়ার ক্ষেত্রে পুরুষ-মহিলা, মাহরাম-গায়রে মাহরাম, আত্মীয়-অনাত্মীয় এবং পরিচিত-অপরিচিতের কোনো পার্থক্য ইসলামী শরিয়ত স্বীকার করে না। এমনকি ধর্মেরও কোনো পার্থক্য নেই। মুসলিম ও অমুসলিম সবাই পরস্পরকে প্লাজমা দিতে ও নিতে পারবে। চিকিৎসক যদি মনে করেন, দাতার প্লাজমা গ্রহীতা গ্রহণ করতে পারবে এবং এই বিষয়ে তিনি সিদ্ধান্ত দেন তাহলে এ ক্ষেত্রে অন্য কোনো প্রশ্ন থাকবে না।

প্লাজমা বিক্রি করা কি জায়েজ

প্লাজমা দান করা বৈধ হলেও বিক্রি করা অবৈধ? মানুষের প্রতিটি অঙ্গ-প্রত্যঙ্গ আল্লাহ তাআলার বিশেষ দান। চাইলেই কোনো মানুষ সে অঙ্গ বিক্রি করতে পারে না। রক্ত যেমন বিক্রি করা জায়েজ নেই, তেমনি প্লাজমাও বিক্রি করা যাবে না। তবে একান্ত অভাবী ব্যক্তি কঠিন আর্থিক সমস্যায় পড়লে রক্ত বা প্লাজমা বিক্রি করতে পারবেন বলে কোনো কোনো ফকিহ মত দিয়েছেন।

প্লাজমা দিলে শারীরিক কোনো ক্ষতি হয় কি

রক্ত যেমন দান করা জায়েজ, প্লাজমাও দান করা জায়েজ- যদি এতে দাতার শরীরের বিশেষ কোনো ক্ষতি না হয়। চিকিৎসকরা নিশ্চিত করেছেন প্লাজমা দান করায় সুস্থ ব্যক্তির শরীরের কোনো ক্ষতি হয় না। চিকিৎসক তাকে দান করার উপযোগী মনে করলে তিনি প্লাজমা দান করবেন। তাই প্লাজমা দেয়ায় ভয় পাওয়া কিংবা কৃপণতা করা মোটেও শরিয়ত-সম্মত আচরণ নয়।

sheikh mujib 2020