advertisement
আপনি দেখছেন

ইসলাম যে একটি পরিপূর্ণ জীবন ব্যবস্থা, সেটা মুসলমানরা যেমন মনে-প্রাণে বিশ্বাস করেন তেমনি তা বাস্তব জীবনের মেনে চলার চেষ্টা করেন। জীবনের প্রতিটি দিক সুস্পষ্টভাবে ইসলাম বলে দিয়েছে। বিয়ের জন্য কনে দেখার ক্ষেত্রে কোন গুণসম্পন্ন নারীকে বিয়ে করবে আর কোন নারীকে বিয়ে করবে না- এ সম্পর্কেও ইসলামের স্পষ্ট দিক-নির্দেশনা রয়েছে। আসুন জেনে নেই, রাসুল (সা.) কোন নারীকে বিয়ে করতে নিষেধ করেছেন আর কোন নারীকে বিয়ে করতে পরামর্শ দিয়েছেন।

islamic couple

কনে দেখার ব্যাপারে রাসুল (সা.) একটি গুরুত্বপূর্ণ বৈশিষ্ট্যের কথা বলেছেন। যে বৈশিষ্ট দেখে কনে নির্বাচন করলে দাম্পত্যজীবনে আর অশান্তির আগুনে পুড়তে হবে না। বুখারি ও মুসলিম শরিফের বর্ণনায় রাসুল (সা.) বলেছেন, ‘মানুষ যখন বিয়ের জন্য কনে দেখতে যায় তখন প্রথমেই কনের অর্থ-সম্পদ কী আছে খোঁজ-খবর করে। তারপর দেখে তার বংশীয় ঐশ্বর্য এবং পারিবারিক প্রভাব-প্রতিপত্তি। তৃতীয় নম্বরে দেখে কনের রূপ-লাবণ্য।

এসব কিছু মিলে গেলে মানুষ ধার্মিকতার খোঁজ-খবর করে। তোমরা যদি সুখী দাম্পত্যজীবন চাও তাহলে অর্থসম্পদ কিংবা বংশ গৌরব অথবা রূপ-লাবণ্যের পেছনে পড়ে থেক না। তোমরা বরং খোদাভিরু ধার্মিক মেয়েকে জীবনসঙ্গীনী হিসেবে বেছে নাও। বুখারি ও মুসলিম শরিফ।

এ হাদিসের ব্যাখ্যায় মুহাদ্দিসরা বলেন, হাদিসে বলা চারটি গুণ এমন গুরুত্বপূর্ণ যে, যেকোনো একটি গুণ থাকলেই ছেলেপক্ষ ওই মেয়ের ব্যাপারে রাজি হয়ে যাবে। যেমন কোনো মেয়ে যদি অগাধ ধনসম্পদের মালিক হয় আর অন্য কোনো গুণ তার নেই, এ মেয়ের জন্যও ভুরি ভুরি পাত্র জুটে যাবে। অথবা কোনো মেয়ের পৃথিবীজয়ী রূপ-লাবণ্য আছে, তার জন্যও ছেলের অভাব হবে না। তেমনিভাবে যে মেয়ে ধার্মিক তার ব্যাপারেও ছেলেরা প্রচুর আগ্রহ দেখাবে।

তো রাসুল (সা.) এর পরামর্শ হলো, সুখী পারিবারিক জীবন পেতে চাইলে অর্থ বা রূপ দেখে নয় বরং ধার্মিকতা দেখেই যেন বিয়ের সম্পর্ক গড়ে তোলে। ধার্মিকতা নেই এমন মেয়েকে বিয়ে করা কোনোভাবেই বুদ্ধিমানের পরিচয় নয়। সুবুলুস সালাম।

কেনো ধার্মিক মেয়ে ছাড়া অন্য মেয়েকে বিয়ে করা বুদ্ধিমানের পরিচয় নয় এর ব্যাখ্যা স্বয়ং রাসুল (সা.) নিজে দিয়েছেন। রাসুল (সা.) বলেছেন, ‘তুমি যদি খুব রূপবতী মেয়ে বিয়ে করো, তবে মনে রেখো অনেক সময় রূপ-লাবণ্য নারীদের বিপথে নিয়ে যায়।

তুমি যদি অতি ধনবতী মেয়ে বিয়ে করো, তাহলে জেনে রেখো অর্থবিত্ত নারীদের স্বামীর প্রতি অবাধ্য করে তোলে।

আর তুমি যদি ধার্মিক মেয়ে বিয়ে করো, তাহলে সে আল্লাহকে ভয় করবে এবং তোমার জীবনে সুখের জোয়ার এনে দেয়ার জন্য সবসময় তৎপর থাকবে। মনে রেখো, রূপবতী বিপথগামী ও ধনবতী অবাধ্য নারীর চেয়ে ধার্মিক একজন কুচকুচে কালো দাসীও অনেক অনেক ভালো। সুনানে ইবনে মাজাহ, মুসনাদে বাজজার এবং সুনানে বায়হাকি শরিফ।

ইবনে মাজাহর আরেক বর্ণনায় রাসুল (সা.) বলেছেন, শুধু রূপ বা অর্থবিত্ত দেখে মেয়েদের বিয়ে করো না। বরং ধার্মিকতা দেখে বিয়ে করো। একজন ধার্মিক কালো মেয়েও সুখী জীবনের জন্য ভালো। সুনানে ইবনে মাজাহ।

sheikh mujib 2020