advertisement
আপনি দেখছেন

চীনের সিনোভ্যাক-বায়োটেকের করোনা টিকার দুই ডোজ নিলে যে অ্যান্টিবডি সৃষ্টি হয় তা ৬ মাস পর কমে যায়। তবে বুস্টার ডোজ নিলে সেই ঘাটতি পূরণ হতে পারে। ১৮-৫৯ বছর বয়সীদের রক্তের নমুনা পরীক্ষা করে এমনটা জানিয়েছেন বিজ্ঞানীরা।

sinovac vaccসিনোভ্যাক টিকা, ফাইল ছবি

সম্প্রতি পরিচালিত এই গবেষণার ফলাফল এখনো অন্য বিজ্ঞানীরা পর্যালোচনা করেননি। গবেষণাটি যৌথভাবে পরিচালনা করেছে চীনের জিয়াংশু প্রদেশের কর্তৃপক্ষ এবং সিনোভ্যাক ও দেশটির গবেষণা সংস্থা। এ নিয়ে বিস্তারিত প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে ব্রিটিশ বার্তা সংস্থা রয়টার্স।

গবেষণায় অংশ নেয়া ব্যক্তিদের ২-৪ সপ্তাহের ব্যবধানে সিনোভ্যাকের দুই ডোজ টিকা দেওয়া হয়। তাদের মধ্যে দ্বিতীয় সপ্তাহে দ্বিতীয় ডোজ নেয়া ব্যক্তিদের দেহে ৬ মাস পর ১৬ দশমিক ৯ শতাংশ অ্যান্টিবডির মিলেছে। চতুর্থ সপ্তাহে দ্বিতীয় ডোজ টিকা নেয়াদের ক্ষেত্রে এই হারটি দেখা গেছে ৩৫ দশমিক ২ শতাংশ।

sinovac vacc 1সিনোভ্যাক টিকা, ফাইল ছবি

খবরে বলা হয়, ৫০ জনের বেশি ব্যক্তির দুটি দল তৈরি করে রক্তের নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষা করা হয়। তবে তৃতীয় ডোজ বা বুস্টার ডোজ দিয়ে ৫৪০ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়। তাতে অ্যান্টিবডির উপস্থিতির এই রকমফের দেখা যায়।

এ ক্ষেত্রে প্রথম দুই দলের কয়েকজনকে ৬ মাস পর তৃতীয় ডোজ টিকা দেয়া হয়। এরপর তাদের নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষা করা হলে দেখা যায়, টিকা দেয়ার ২৮ দিন পর থেকে অ্যান্টিবডি বেড়েছে ৩-৫ গুণ পর্যন্ত।

বিজ্ঞানীরা বলছেন, করোনার অতি-সংক্রামক নতুন ভ্যারিয়েন্টগুলোতে আক্রান্তদের শরীরে অ্যান্টিবডির প্রভাব পরীক্ষা করা হয়নি। এ ব্যাপারে বিস্তারিত জানতে বিস্তর গবেষণার প্রয়োজন পড়বে।