advertisement
আপনি দেখছেন

ইসলামের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ স্তম্ভ হলো যাকাত। নিঃস্ব-অসহায়-গরীব-দুঃখীদের জন্য সামর্থ্যবানদের প্রতি আল্লাহ তায়ালা যে নির্দষ্ট সদকা আদায়কে ফরজ করেছেন শরীয়তের পরিভাষায় তাকে যাকাত বলা হয়।

zakat header 6001 1

পবিত্র কোরআনে যাকাতের ৮টি খাত বর্ণনা করা হয়েছে। কিন্তু আমাদের দেশের বেশিরভাগ মানুুষ মনে করেন, যাকাত শুধু ফকির-মিসকিনকেই দেওয়া যায়। মূলত যাকাতের পরিধি আরো ব্যাপক। যাকাতই ইসলামী রাষ্ট্রের মুল আয়ের উৎস। সুষ্ঠুভাবে যাকাত বণ্টন করা গেলে একটি রাষ্ট্র অল্পদিনেই সমৃদ্ধ হয়ে উঠতে পারে।

যাকাতের ব্যাপারে আরেকটি লক্ষ্যণীয় বিষয় হলো, নিকটাত্মীয়দের মধ্যে যারা অভাবী তারাই যাকাত পাওয়ার বেশি হকদার। কিন্তু অনেকেই ‘পেশাদার’ ফকির-মিসকিনকে যাকাত দেন অথচ অভাবী আত্মীয়-স্বজনদের খোঁজ নেন না।

অনেক ক্ষেত্রে দেখা যায়, মেয়েকে বিয়ে দেওয়ার পর স্বামীর সংসারে অভাব-অনটন এসে হানা দেয়। এমন ক্ষেত্রে বাবা চাইলে কিংবা সাহেবে নেসাব মা চাইলে তাদের যাকাতের টাকা মেয়েকে দিতে পারবেন। এ ক্ষেত্রে বিবেচ্য বিষয় হলো, মেয়েকে অবশ্যই অভাবী হতে হবে।

তবে সন্তান চাইলে কিন্তু অভাবী বাবা-মাকে যাকাতের অর্থ দিয়ে সহযোগিতা করতে পারবেন না। এর কারণ হলো, বাবা-মায়ের ভরণপোষণ দেওয়া সন্তানের ওপর আবশ্যক। তাই যাকাতের টাকা দিয়ে বাবা-মাকে সাহায্য করলে তা যাকাত হিসেবে আদায় হবে না।

বিস্তারিত দেখুন : ইসলামে যাকাতের বিধান, ড. ইউসুফ আল কারজাভি