advertisement
আপনি দেখছেন

স্মার্টফোন এখন আমাদের জীবনের এক অবিচ্ছেদ্য অংশে পরিণত হয়েছে। কেবল চার্জ না থাকার কারণেই কিছুক্ষণ ফোন বন্ধ থাকলে শুরু হয় আমাদের হাঁসফাঁস। অথচ এই স্মার্টফোনেই আমাদের জন্য লুকিয়ে আছে বড় ধরনের বিপদ।

danger in smartphone

সাম্প্রতিক এক গবেষণায় দেখা গেছে, যারা স্মার্টফোনে অ্যান্ড্রয়েড অপারেটিং সিস্টেম ব্যবহার করেন, তাদের ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ তথ্য চুরি হওয়ার আশঙ্কা বেশি। এবিষয়ে স্মার্টফোন ব্যবহারকারীদের সতর্ক করেছেন গবেষকরা। খবর: আইএএনএস।

গবেষণায় বলা হয়, অ্যান্ড্রয়েড ফোনে থাকা জনপ্রিয় কিছু অ্যাপ ব্যবহারকারীর কথাবার্তা রেকর্ড এবং নজরদারি করছে। এমনকি স্মার্টফোনের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ তথ্যের স্ক্রিনশট নিয়ে এবং ভিডিওচিত্র ধারণ করে তা দুর্বৃত্তের কাছে পাঠিয়ে দিচ্ছে।

গবেষণায় উঠে এসেছে, ব্যবহারকারীর স্মার্টফোন থেকে নেয়া ভিডিও ও স্ক্রিনশটের মধ্যে থাকে ব্যবহারকারীর নাম, পাসওয়ার্ড ও ক্রেডিট কার্ড নম্বরসহ ব্যক্তিগত অনেক গুরুত্বপূর্ণ তথ্য।

যুক্তরাষ্ট্রের বোস্টন নর্থ-ইস্টার্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ডেভিড শোফেনস বলেন, ‘অ্যান্ড্রয়েড ফোনের প্রতিটি অ্যাপের পক্ষেই ব্যবহারকারীর স্মার্টফোনের স্ক্রিনের কার্যক্রম রেকর্ড রাখা সম্ভব। বিশেষ করে স্মার্টফোনে যা টাইপ করা হয়, তা রেকর্ড রাখতে পারে অ্যাপ।’

গবেষক ক্রিস্টো উইলসন বলেন, অ্যাপগুলো স্ক্রিনশট নিয়ে স্বয়ংক্রিয়ভাবে তৃতীয় পক্ষের কাছে যে পাঠাচ্ছে, গবেষণায় সে বিষয়টি দেখা যায়। ব্যবহারকারীর অজান্তেই তথ্য সংগ্রহ করা হচ্ছে যা ক্ষতিকর কাজে ব্যবহার করা হতে পারে।

এ গবেষণার জন্য অ্যান্ড্রয়েড প্ল্যাটফর্মের ১৭ হাজার অ্যাপ্লিকেশন নিয়ে পরীক্ষা চালানো হয়। এতে দেখা যায়, ১৭ হাজার অ্যাপের মধ্যে নয় হাজার অ্যাপেরই স্ক্রিনশট নেয়ার সক্ষমতা রয়েছে।

বার্সেলোনায় অনুষ্ঠেয় ‘প্রাইভেসি এনহ্যান্সিং টেকনোলজি সিম্পোজিয়াম কনফারেন্সে’ এই গবেষণাপত্র প্রকাশ করা হবে। গবেষকরা বলছেন, অ্যান্ড্রয়েড নিয়ে পরীক্ষা চালানোর ফলে ভাবার কারণ নেই যে, অন্যগুলো নিরাপদ।

sheikh mujib 2020