advertisement
আপনি দেখছেন

বাংলাদেশসহ উত্তর গোলার্ধে চলতি বছরের দীর্ঘতম রাত আজ শনিবার। ফলে আগামীকাল রোববার থাকবে ক্ষুদ্রতম দিন। সৌরজগতে সূর্যকে ঘিরে পৃথিবীর ঘূর্ণন নিয়মের কারণেই প্রতিবছর ২১ ডিসেম্বর উত্তর গোলার্ধে দীর্ঘতম রাত এবং এর পর দিন ২২ ডিসেম্বর ক্ষুদ্রতম দিন হয়ে থাকে।

foggy night

জ্যোর্তিবিজ্ঞানের হিসাব অনুযায়ী, ২১ ডিসেম্বর সূর্য পৃথিবীর মকরক্রান্তি রেখা বরাবর অবস্থান করে। তাই উত্তর মেরু সূর্য থেকে কিছুটা দূরে হেলে থাকে। সূর্যের এমন অবস্থানের কারণে এদিন পৃথিবীর উত্তর গোলার্ধে দ্রুত সন্ধ্যা নেমে আসে। কিন্তু এর পর দিন ভোর হয় দেরিতে। এর ফলে বাংলাদেশসহ পৃথিবীর উত্তর গোলার্ধে ২১ ডিসেম্বর দীর্ঘতম রাত এবং এর পরদিন ২২ ডিসেম্বর ক্ষুদ্রতম দিন হয়ে থাকে। 

এদিকে, এদিন পৃথিবীর দক্ষিণ মেরু সূর্যের কাছাকাছি থাকায় পুরোপুরি বিপরীত চিত্র দেখা যায় সেখানে। ২১ ডিসেম্বর দক্ষিণ গোলার্ধে দীর্ঘতম দিন এবং ক্ষুদ্রতম রাত হয়ে থাকে। একে বলা হয় দক্ষিণ অয়নায়ন।

day night calculation

এ বিষয়ে জ্যোর্তিবিজ্ঞানীরা জানান, ২১ ডিসেম্বররের পর থেকে উত্তর মেরুতে রাতের অবস্থান কমতে শুরু করে। পাশাপাশি দিন বড় হতে শুরু করে। ২১ মার্চ সূর্য বিষুব রেখা (বাসন্ত) বরাবর অবস্থান নিলে পৃথিবীর উত্তর ও দক্ষিণ গোলার্ধে দিন-রাত্রি সমান হয়ে থাকে। এর পর ২১ জুন সূর্য কর্কটক্রান্তি রেখা বরাবর অবস্থান নিলে উত্তর গোলার্ধে মানুষরা দীর্ঘতম দিন এবং ক্ষুদ্রতম রাতের অভিজ্ঞতা পান। একে বলে উত্তর অয়নায়ন।

জ্যোর্তিবিজ্ঞানীরা আরো বলেন, ওই দিনও দক্ষিণ গোলার্ধে বিপরীত চিত্র দেখা যায়। অর্থাৎ ২১ জুন সেখানকার বাসিন্দারা দীর্ঘতম রাত এবং ২২ জুন ক্ষুদ্রতম দিনের অভিজ্ঞতা পান। এরপর পর্যাক্রমে সূর্য ফের বিষুব রেখা (শারদ) বরাবর অবস্থান নিয়ে দুই গোলার্ধেই দিন-রাত্রি সমান হয়।