আপনি দেখছেন
সর্বশেষ আপডেট: 01 মিনিট আগে

আজ ১৭ মার্চ। স্বাধীন বাংলাদেশের মহান স্থপতি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৯৯তম জন্মবার্ষিকী। এ দিনটি জাতীয় শিশু দিবস হিসেবেও পালন করা হয়। দিবসটি উপলক্ষে এবার ভিন্ন মাত্রার আয়োজন বিশেষ ডুডল প্রদর্শন করছে বিশ্বের সবচেয়ে জনপ্রিয় এই সার্চ ইঞ্জিন। দিনের প্রথম প্রহর থেকেই গুগলের হোমপেজে এটি দেখা যাচ্ছে।

google doodle childrens dayবঙ্গবন্ধুর জন্মদিনে গুগল ডুডল

জানা যায়, বিশ্বের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ বিশেষ দিন বা বিশেষ ঘটনা উপলক্ষে লোগো পরিবর্তনের মাধ্যমে ডুডল করে থাকে সার্চ জায়ান্ট গুগল। এরই ধারাবাহিকতায় আজ বঙ্গবন্ধুর জন্ম শত বার্ষিকী সামনে রেখে এবার এ ফিচার করা হয়েছে।

হোম পেজের ডুডলে শোভা পাচ্ছে সবুজ প্রকৃতির ওপর শক্তিশালী এক নেটওয়ার্কের প্রতিকৃতি, যার ওপর শিশুরা খেলছে। এদের কেউ নেটওয়ার্ক বেয়ে উন্নতির দিকে উঠছে, কেউ বসে নিরাপদে বসে আনন্দ করছে, আবার কেউ নিচের দিকে নামছে, কেউ নিশ্চিন্তে বসে বই পড়ছে।

এছাড়া বরাবরের মতো গুগলের লোগোর ইংরেজি বানানেও পরিবর্তন আনা হয়েছে। দেখা যাচ্ছে, গুগল লেখায় ব্যবহৃত বর্ণগুলো মাঝখানের দুটি বর্ণ উচ্ছসিত দুই শিশুর অবয়বে বানানো হয়েছে।

ডুডল করা দিবসটি সম্পর্কে বিস্তারিত জানার জন্য এটির ওপর ক্লিক করতে হবে। এরপর এটি এ সংক্রান্ত একটি পাতায় নিয়ে যাবে। সেখানে বিদসটি সম্পর্কে সংক্ষিপ্ত আকারে বেশ কিছু তথ্য দেখা যাবে। এছাড়া অনেকগুলো ওয়েবসাইটের লিংকও রয়েছে, যা থেকে বিষয়টি সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য পাওয়া যাবে।

১৯২০ সালের ১৭ মার্চ গোপালগঞ্জ জেলার টুঙ্গিপাড়ায় জন্মগ্রহণ করেন জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। পাকিস্তানি শাসকদের শোষণ ও নিপীড়নের বিরুদ্ধে, ভোট এবং ভাতের অধিকারের জন্য সারা জীবন লড়াই-সংগ্রাম করেছেন তিনি। পুরো জাতিকে ঐক্যবদ্ধ করে ধাপে ধাপে মুক্তির সংগ্রামে ব্রত করেন এই অবিসংবাদিত নেতা। তারই ফলশ্রুতিতে দীর্ঘ ৯ মাসের রক্তক্ষয়ী স্বাধীতাযুদ্ধের মধ্য দিয়ে স্বাধীন বাংলাদেশের অভ্যুদয় হয়।

কিন্তু স্বাধীন দেশে ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট কতিপয় বিপথগামী সেনা সদস্যের হাতে প্রায় সপরিবারে নিহত হন বঙ্গবন্ধু। তার কন্যা শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আওয়ামী লীগ চতুর্থবারের মতো সরকার পরিচালনা করছে। তার সরকার ২০২০ সালে বঙ্গবন্ধুর জন্ম শত বার্ষিকী পালনের ঘোষণা দিয়েছে।

এবার দিবসটি উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আলাদা আলাদা বাণী দিয়েছেন। এছাড়া প্রধানমন্ত্রী সকালে ধানমণ্ডির ৩২ নম্বরে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। পরে রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রী টুঙ্গিপাড়ায় গিয়ে বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। দিবসটি পালনে নানা কর্মসূচিও গ্রহণ করা হয়েছে।