advertisement
আপনি দেখছেন

করোনা ভাইরাসজনিত মহামারীতে রীতিমত কাঁপছে পৃথিবী। ইউরোপ-আমেরিকার শক্তিশালী দেশগুলোর চিকিৎসা ব্যবস্থাও ভেঙে পড়েছে অত্যন্ত বাজেভাবে। ১১ হাজারের বেশি মানুষের মৃত্যু হয়েছে এরই মধ্যে। মৃত্যুর সাথে লড়ছেন আরো অসংখ্য মানুষ। পরিস্থিতি থেকে উত্তরণের জন্য একমাত্র উপায় ঘরে বসে থাকা। এই সময়ে জরুরি প্রয়োজনে যোগাযোগের জন্য ডিজিটাল মাধ্যমের বিকল্প নেই। দেখা করারও যদি প্রয়োজন পড়ে, সে ক্ষেত্রে ব্যবহার করতে পারেন এই ৫টি ভিডিও চ্যাটিং অ্যাপ্লিকেশন।

video chatting app which can help you connected

পৃথিবীর অনেক বড় বড় প্রতিষ্ঠানের মতো বাংলাদেশের বেশ কিছু প্রতিষ্ঠানো বাসা থেকে কাজের ব্যবস্থা করেছে। ফলে সহকর্মীদের সাথে জরুরি যোগাযোগের জন্য ভিডিও কলিংয়ের প্রয়োজন পড়তে পারে, প্রয়োজন পড়তে পারে ভিডিও করফারেন্সেরও। এই ৫টি অ্যাপ সেই প্রয়োজন মেটাবে দারুণভাবে।

১. হোয়াটসঅ্যাপ (শুধুমাত্র মোবাইল ডিভাইসের ক্ষেত্রে)

ফেসবুকের মালিকানাধীন হোয়াটসঅ্যাপ পৃথিবীর সবচেয়ে জনপ্রিয় মেসেজিং অ্যাপগুলোর অন্যতম। মেসেজ পাঠানোর পাশাপাশি অডিও এবং ভিডিও কলের জন্য হোয়াটসঅ্যাপের জনপ্রিয়তা আকাশছোঁয়া। বিশ্বের প্রায় দুইশ কোটি মানুষ হোয়াটসঅ্যাপ ব্যবহার করেন। এটির সবচেয়ে বড় গুণ হলো ব্যবহারের সহজবোধ্যতা। এ ছাড়া হোয়াটসঅ্যাপে আছে ডিভাইস টু ডিভাইস এনক্রিপশন ব্যবস্থা। ফলে যোগাযোগ করা দুজন মানুষ ছাড়া হোয়াটসঅ্যাপে পাঠানো কোনো বার্তা আর কেউ দেখতে পায় না।

২. মেসেঞ্জার (শুধুমাত্র ফেসবুক ব্যবহারকারীদের জন্য)

বাংলাদেশের সবচেয়ে মেসেজিং অ্যাপ সম্ভবত মেসেঞ্জার। মেসেজ পাঠানোর পাশাপাশি অডিও এবং ভিডিও কলও করা যায় মেসেঞ্জার দিয়ে। মেসেঞ্জার ব্যবহার করেন না এমন স্মার্টফোন ব্যবহারকারি বাংলাদেশে বলতে গেলে পাওয়াই যাবে না।

৩. স্কাইপি (মোবাইল বা ডেস্কটপ- উভয় ডিভাইসের জন্য)

এক সময় স্কাইপির জনপ্রিয়তা ছিলো দারুণ। কিন্তু অন্যান্য অ্যাপের ক্রমবর্ধমান উন্নতিতে মাইক্রোসফটের মালিকানাধীন স্কাইপির জনপ্রিয়তা এখন একটু কম। তারপরও অফিসিয়াল কার্যক্রমের জন্য ডিজিটাল যোগাযোগ মাধ্যমে হিসেবে স্কাইপি দুর্দান্ত এক অ্যাপ। মেসেজ পাঠানোর পাশাপাশি অডিও-ভিডিও কল এবং ডকুমেন্ট পাঠানোর জন্য স্কাইপি ব্যাবহার করতে পারেন নিশ্চিন্তে।

৪. গুগল হ্যাং আউট (জিমেইল ব্যবহারকারীদের জন্য)

গুগল টক আজ আর নেই। এক সময় গুগল টক ছিলো মেসেজিং অ্যাপদের বস! কিন্তু দিন বদলে গেছে। গুগল টকের জায়গা নিয়েছে গুগল হ্যাং আউট। জিমেইল ব্যবহারকারিদের জন্য গুগল হ্যাং আউটে মেসেজ পাঠানো, অডিও কল, ভিডিও কল এবং কনফারেন্সের জন্য দারুণ কার্যকরী।

৫. ফেসটাইম (শুধুমাত্র অ্যাপল ডিভাইসের জন্য)

বাংলাদেশে অ্যাপল ডিভাইস ব্যবহারকারিদের সংখ্যা খুব বেশি নয়। তারপরও সংখ্যাটা একেবারে কম নয়। অ্যাপল ডিভাইস ব্যবহারকারিদের জন্য এই সময়ের ডিজিটাল যোগাযোগের জন্য এক নম্বর অ্যাপ হতে পারে ফেসটাইম। মেসেজ, অডিও এবং ভিডিও কলের জন্য এই অ্যাপ অন্তত সহজভাবে সাজানো।