advertisement
আপনি দেখছেন

ব্যাপারটি অত্যন্ত দুর্ভাগ্যজনক হলেও সত্য যে, করোনা ভাইরাসের মতো পৃথিবী কাঁপানো করোনা ভাইরাসের সময়ে বেড়ে গেছে বর্ণবৈষম্য। সোশ্যাল মিডিয়াতে এশিয়ান মানুষদের লক্ষ্য করে বর্ণবৈষম্যমূলক আচরণ করছেন ইউরোপ-আমেরিকার অনেকে। এই পরিস্থিতি সামাল দিতে বেকায়দায় পড়ে গেছে ফেসবুক, টুইটার বা টিকটকের মতো মাধ্যমগুলো।

racism in social media during coronavirus outbreak

যেমন ২৩ বছর বয়সী চিনি ওসেরা টিকটকে নানা ধরনের মজার ভিডিও পোস্ট করতে ভালোবাসেন। তার ভিডিওগুলো যে মজার হয়, তা বোঝা যায় তার ৪৫ হাজার ফলোয়ার দেখলেই। গানের সাথে লিপসিং ও বিভিন্ন নাচের মুদ্রা দেখিয়ে ভিডিও পোস্ট করেন তিনি।

বিশ্বজুড়ে করোনা ভাইরাস ছড়িয়ে পড়ার পর তার বিভিন্ন ভিডিওতে তাকে ‘করোনা ভাইরাস’ সম্বোধন করে অনেকে মন্তব্য করেছেন। কেউ কেউ আবার শুধু ‘করোনা’ লিখে তার পাশে জীবাণূর ইমোজি পোস্ট করেছেন। যা দেখে দারুণ কষ্ট পেয়েছেন ওসেরা।

তিনি সংবাদ মাধ্যমকে বলেন, “আমি মূলত ফিলিপো-চাইনিজ আমেরিকান। আমি থাকি ওয়াশিংটনে। লোকজনের এ রকম কমেন্ট দেখলে খুব হতাশ লাগে, মন খারাপ হয়ে যায়। লোকজনের এটা বোঝা উচিত যে কাউকে এশিয়ানদের মতো লাগে মানেই এটা নয় যে সে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত।”

ওসেরাই একমাত্র ব্যক্তি নন যিনি এই মুহূর্তে সোশ্যাল মিডিয়ায় ছড়াতে থাকা বর্ণবৈষম্যের শিকার হচ্ছন। বরং তার মতো অনেকেই আছেন যারা বিবেক বিবেচনাহীন অনেক মানুষের কুরুচির লক্ষ্যে পরিণত হয়ে আছেন।

কয়েদিন আগে করোনা ভাইরাসকে ‘চাইনিজ ভাইরাস’ বলে আখ্যায়িত করে বিশ্বের সমালোচনার পাত্র হন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। তিনি অবশ্য দাবি করেছেন তার মন্তব্যের উদ্দেশ্য বৈষম্য করা নয়, বরং চীনেই যেহেতু সর্ব প্রথম কেউ এই ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন, এই কারণে তিনি ‘চাইনিজ ভাইরাস’ কথাটি বলেছেন।

পরের এক বক্তব্যে ট্রাম্প বলেছেন, এশিয়ান-আমেরিকান জনগোষ্ঠিকে নিরাপদ রাখা তার দায়িত্ব। তিনি এও বলেন যে, পৃথিবীজুড়ে সব মানুষের নিরাপত্তা নিশ্চিত করাকেও আমেরিকা তাদের দায়িত্ব মনে করে।

উল্লেখ্য, করোনা ভাইরাসে এখন পর্যন্ত চার লাখের বেশি মানুষ আক্রান্ত হয়েছেন। মারা গেছেন ১৮ হাজারের বেশি। বাংলাদেশে আক্রান্ত সংখ্যা ৩৯-এ পৌঁছেছে এবং মারা গেছেন চারজন। এরই মধ্যে বাংলাদেশ সরকার পুরো দেশ লকডাউন করার ঘোষণা দিয়েছে। ২৬ মার্চ থেকে বাংলাদেশের কোনো গণপরিবহন চলবে না বলে ঘোষণা দেওয়া হয়েছে।

sheikh mujib 2020