advertisement
আপনি দেখছেন

বিশ্ববিদ্যালয়ের ২১ বছর বয়সী এক শিক্ষার্থী তার ব্যবহৃত অ্যাপলের আইফোনটি সারতে দিয়েছিলেন কোম্পানির সার্ভিস সেন্টারে। সেটিতে থাকা তার ব্যক্তিগত ছবি ও ভিডিও তারই একাউন্ট থেকে ছড়িয়ে পড়ে ফেসবুকে।

apple officeঅ্যাপেলের অফিস, ফাইল ছবি

ওই ঘটনায় আইফোন কোম্পানিটির বিরুদ্ধে ৫ মিলিয়ন ডলার ক্ষতিপূরণ চেয়ে মামলা দায়ের করেন ওই তরুণী। পরে ইউনিভার্সিটি অব অরেগনের ওই শিক্ষার্থীর সঙ্গে সমঝোতা করে অ্যাপল।

বিসিসি জানায়, দু’পক্ষের মধ্যে কত মিলিয়ন ডলারের চুক্তি হয়েছে, তা প্রকাশ করা হয়নি। তবে এ সংক্রান্ত অ্যাপসের নথিতে ‘মাল্টি-মিলিয়ন ডলার’ উল্লেখ করা হয়েছে।

appleঅ্যাপেলের ফোন, ফাইল ছবি

একটি গোপন শর্তে চুক্তিটি সম্পাদিত হওয়ার কথা জানিয়ে এনডিটিভি বলছে, সেই অনুযায়ী, ওই নারী মামলা তুলে নেবেন এবং ক্ষতিপূরণের টাকার পরিমাণ প্রকাশ করতে পারবেন না।

২০১৬ সালে যুক্তরাষ্ট্রের ক্যালিফোর্নিয়ায় ব্যক্তিগত ছবি ফাঁসের ঘটনাটি ঘটে। বিষয়টি বন্ধুরা ওই তরুণীকে জানানোর পর সেসব ছবি ও ভিডিও সরানো হয়। এর পরই ‘তীব্র মানসিক বিপর্যয়’ ঘটানোর অভিযোগে অ্যাপলের বিরুদ্ধে মামলা করেন তিনি।

us flagযুক্তরাষ্ট্রের পতাকা

ওই মামলার নথিসহ আপলোড করা দুই টেকনিশিয়ানের বিস্তারিত বক্তব্য প্রকাশ করে ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম টেলিগ্রাফ। এ নিয়ে হইচই পড়ে গেলে বিষয়টি তদন্ত করে ওই দুই টেকনিশিয়ানকে বরখাস্ত করে অ্যাপল।

পরে বিবৃতি দিয়ে কোম্পানিটি বলে, গ্রাহকদের ব্যক্তিগত গোপনীয়তা ও নিরাপত্তা গুরুত্বের সাথে দেখা হয়। ফোন মেরামতের সময় তা সুরক্ষার দিকটি নিশ্চিত করতে একগুচ্ছ প্রটোকল নেয়া হয়েছে।