advertisement
আপনি দেখছেন

করোনাকালে এক ধাক্কায় বিশ্বের শীর্ষ ধনীর আসনে আসীন হয়েছেন টেসলা ও স্পেসএক্সের প্রতিষ্ঠাতা ইলন মাস্ক। তার ব্যক্তিগত সম্পদের পরিমাণ ২২ হাজার ২০০ কোটি মার্কিন ডলার। এই তালিকায় দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছেন বৈশ্বিক ই-কমার্স ও আমাজনের প্রতিষ্ঠাতা জেফ বেজোস। ১৯ হাজার ১৬০ কোটি ডলারের মালিক তিনি।

jeff bezos elon muskজেফ বেজোস ও ইলন মাস্ক, ফাইল ছবি

এমন তথ্য জানিয়ে ব্লুমবার্গের বিলিয়নিয়ার ইনডেক্সে বলা হয়েছে, বিশ্বের শীর্ষ ধনী ইলন মাস্কের সঙ্গে সম্পদের ব্যবধান বেড়েই চলেছে দ্বিতীয় অবস্থানে থাকা বেজোসের। সবশেষ গত সপ্তাহে শেয়ার মূল্য থেকে ১ হাজার ৬০ কোটি ডলার আয় করায় ব্যবধানটা বেশ বেড়েছে।

এমন প্রেক্ষাপটে গত রোববার রাতে বিরোধীদের ‘খোঁটা’ দিয়ে একটি টুইট করে বেজোস বলেন, আমাজন এখন বিশ্বের অন্যতম সফল কোম্পানি, যেটি দুটি ভিন্ন শিল্পে বিপ্লব ঘটিয়েছে। শুনুন আর বলুন, তবে আপনি কে, তা কাউকে বলতে দেবেন না। ব্যর্থ হওয়ার পথে এমন অনেক গল্প রয়েছে আমাদের।

bloombergs billionaire indexব্লুমবার্গের বিলিয়নিয়ার ইনডেক্স, ফাইল ছবি

টুইটের সঙ্গে ১৯৯৯ সালে প্রকাশিত ব্যারনস ম্যাগাজিনের একটি প্রতিবেদন জুড়ে দেন বেজোস। ওই প্রতিবেদনে বেজোসকে ‘আরেকজন মধ্যস্বত্বভোগী’ হিসেবে অভিহিত করা হয়। এরপরই একটি রৌপ্য পদকের ইমোজি জুড়ে দিয়ে ট্রল করে ইলন মাস্ক টুইট করেন এবং বলেন, বিশ্বের দ্বিতীয় ধনীর পদমর্যাদা অর্জন করলেন বেজোস।

সিএনবিসির খবরে বলা হয়, গত মাসে বেজোসকে পেছনে ফেলে বিশ্বের শীর্ষ ধনীর তালিকায় দ্বিতীয়বারের মতো উঠে আসেন ইলন মাস্ক। এর আগে এই করোনাকালেই প্রথম দফায় ইলনকে পেছনে ফেলে তার আসনটি দখল করেছিলেন বেজোস। তার আগে প্রথমবারের মতো শীর্ষ ধনীর আসনে বসেন ইলন মাস্ক।