advertisement
আপনি পড়ছেন

নতুন সেবা সম্পর্কে (প্যাকেজ, অফার, কলরেট) কোন তথ্য জানিয়ে মোবাইল ফোন অপারেটর কোম্পানি গ্রামীণফোন কোন মাধ্যমে বিজ্ঞাপন দিতে পারবে না। সোমবার (১৮ ফেব্রুয়ারি) প্রতিষ্ঠানটির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তার (সিইও) কাছে এমন একটি চিঠি পাঠিয়েছে বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন (বিটিআরসি)।

grameenphone logo

গ্রামীণফোনকে সিগনিফিকেন্ট মার্কেট পাওয়ার (এসএমপি) ঘোষণা করার পর এবার প্রতিষ্ঠানটির জন্য করণীয় ও বর্জনীয় নির্ধারণ করে দিল নিয়ন্ত্রক সংস্থা। বিটিআরসি’র চিঠি অনুযায়ী, অন্য কোনো প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে কিংবা স্বতন্ত্রভাবে বিজ্ঞাপন দিতে পারবে না গ্রামীণফোন। একক স্বত্ত্বাধিকার চুক্তিও করা যাবে না। পাশাপাশি মাসে কল ড্রপের সর্বোচ্চ হার ২ শতাংশের বেশি হতে পারবে না। এমএনপি লকের ক্ষেত্রে মেয়াদ হবে ৩০ দিন। দেশব্যাপী কোনো ধরনের মার্কেট কমিউনিকেশন করা যাবে না।'

বিটিআরসি’র চেয়ারম্যান জহুরুল হক বলেন, 'মোবাইলফোন অপারেটর গ্রামীণফোন গ্রাহক সেবার ক্ষেত্রে তাদের গুণগত মান ধরে রাখতে পারছে না। ফলে তারা নতুন করে কোনো বিজ্ঞাপন দিতে পারবে না।'

বিটিআরসি’র মিডিয়া উইংয়ের সহকারী পরিচালক জাকির হোসেন জানান, 'সামনে নতুন কোন প্যাকেজ বা অন্য কোনো সেবার ক্ষেত্রে গ্রামীণফোন আর নতুন করে কোনো বিজ্ঞাপন দিতে পারবে না। তবে পুরাতন বিজ্ঞাপনগুলো চলার ক্ষেত্রে কোন বাধা নেই।'

তিনি বলেন, 'মোবাইল ফোনের সেবার মান নিশ্চিত করতে কমিশন কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছে। কোয়ালিটি অব সার্ভিস রেগুলেশন অনুযায়ী চলতে হবে। গ্রাহক পর্যায়ে মানের ক্ষেত্রে কমিশনের নির্দেশ অমান্য করার কোনো সুযোগ নেই।'

প্রসঙ্গত, গত ১০ ফেব্রুয়ারি গ্রামীণফোনকে এসএমপি ঘোষণা করে বিটিআরসি। ফলে, দেশের বাজার নিয়ন্ত্রণে গ্রামীণের একচেটিয়া ক্ষমতা বা দখল হ্রাস পাবে। ফলে স্বাভাবিকভাবেই অন্য প্রতিষ্ঠানের ক্ষেত্রে নতুন বাজার তৈরি হবে।