advertisement
আপনি পড়ছেন

টানা তৃতীয়বার ঢাকায় অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে এশিয়া কাপ ক্রিকেট টুর্নামেন্ট। গতকাল দিনভর বিভিন্ন অনলাইন সংবাদ মাধ্যম ও টিভিতে প্রচার করা হচ্ছিলো এ খবর। কিন্তু কোনো সুনিশ্চিত তথ্য ছিলো না। পরে রাতে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের সিইও নিজাম উদ্দিন চৌধুরী সংবাদ মাধ্যমকে বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

এর আগে ২০১২ ও ২০১৪ সালেও এশিয়া কাপ আয়োজন করে বাংলাদেশ। এবার সম্ভাবনা ছিলো, ভারত এশিয়া কাপ আয়োজন করবে। কিন্তু শেষ পর্যন্ত তা হয়নি। বাংলাদেশই অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে টানা তৃতীয় এশিয়া কাপ ক্রিকেট।

আগামী বছরের ফেব্রুয়ারির ২৪ তারিখ থেকে মার্চের ছয় তারিখে শেষ হবে এশিয়া কাপ। অর্থাৎ ভারতে ওয়ার্ল্ড টি-টোয়েন্টি শুরু হওয়ার মাত্র পাঁচ দিন আগে শেষ হবে পাঁচ দেশের মহাদেশীয় ক্রিকেট টুর্নামেন্ট। টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের আগে বলেই এবার এশিয়া কাপ হবে টি-টোয়েন্টি ফরম্যাটে।

আসরে অংশগ্রহণকারী চারটি দেশ হলো এশিয়ার চার টেস্ট খেলুড়ে দেশ। বাকি একটি দেশ আসবে কোয়ালিফাইং রাউন্ড খেলে। এশিয়া কাপের গত পর্বে কোয়ালিফাই করে এসেছিলো আফগানিস্তান। প্রথম এসেই চমক দেখায় তারা। ফতুল্লায় বাংলাদেশকে হারিয়ে মোহাম্মদ নবির দল।

এ দিকে এশিয়া কাপ যে বাংলাদেশে হবে, সেই সিদ্ধান্ত হয়েছে গতকালই। সিঙ্গাপুরে এশিয়ান ক্রিকেট কাউন্সিলের সভায় পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ড সর্ব প্রথম বাংলাদেশের নাম বলে। কারণ ভারতে গিয়ে খেলতে চায় না তারা। পরে এশিয়ার অন্য দেশগুলো তাদের প্রস্তাবে সায় দিয়ে বাংলাদেশে খেলতে সম্মতি জানায়। বিষয়টি সংবাদ মাধ্যমকে বলেছেন নিজাম উদ্দিন চৌধুরী।

কোয়ালিফাইং রাউন্ড পার হয়ে বাংলাদেশে কোন সহযোগী এশিয়ান দেশ আসবে তা জানা যাবে নভেম্বরের শেষ দিকে। তখন আফগানিস্তান, ওমান, হংকং ও আরব আমিরাত কোয়ালিফাইয়ের জন্য পরস্পরের মুখোমুখি হবে। উল্লেখ্য, এবার নিয়ে টানা তিনবার এশিয়া কাপ আয়োজক হওয়ার আগে ১৯৯৮ ও ২০০০ সালেও এশিয়া কাপ আয়োজন করেছিলো বাংলাদেশ। অর্থাৎ বাংলাদেশে একমাত্র দেশ যারা পাঁচ এশিয়া কাপের আয়োজক হলো।

 

আপনি আরো পড়তে পারেন

জিম্বাবুয়ে সিরিজের দল ঘোষণা, নতুন মুখ রাব্বি

পাকিস্তান সুপার লিগে জয়া-সাঙ্গা

কোচ হয়ে ঢাকা ফিরছেন জার্গেনসেন