advertisement
আপনি দেখছেন
সর্বশেষ আপডেট: 12 মিনিট আগে

পাকিস্তান সুপার লিগে (পিএসএল) শিরোপা ধরে রাখার স্বপ্নটা বাঁচিয়ে রেখেছে ইসলামাবাদ ইউনাইটেড। বৃহস্পতিবার রাতে করাচি কিংসকে চার উইকেটে হারিয়েছে ডিফেন্ডিং চ্যাম্পিয়নরা। প্রথম এলিমিনেটর ম্যাচে নির্ধারিত ওভারে নয় উইকেটে ১৬১ রান তুলে করাচি কিংস। জবাব দিতে নেমে তিন বল হাতে রেখেই জয় তুলে নেয় ইসলামাবাদ (১৬৪/৬)।

psl 2019 islamabad united win eliminator

করাচিতে টস জিতে আগে ব্যাট করতে নেমে উড়ন্ত সূচনাই করে স্বাগতিক শিবির। চতুর্থ ওভারের শুরুতেই দলীয় সংগ্রহ ৫০ ছাড়ায় করাচি কিংস। ভয়ঙ্কর হয়ে ওঠা উদ্বোধনী জুটি ভাঙে কলিন মুনরোর ৩২ রানের বিস্ফোরক ইনিংস খেলে বিদায় নিলে। ১১ বলে ছয়টি চার ও একটি ছক্কা মেরছেন মুনরো।

শুরুর এই ছন্দটা ধরে রেখেছে করাচি কিংস। দ্বিতীয় উইকেট জুটিতে দলকে তিন অংকে পৌঁছে দেন ওপেনার বাবর আজম ও লিভিংস্টোন। ১১তম ওভারে ৫০ রানের এই জুটি ভাঙার পরই ধুঁকতে থাকে করাচি কিংস। রান তোলার গতি কমে আসে তাদের। ৩২ বলে চারটি চারে ৪২ রানে সাজঘরে ফিরে যান বাবর।

২৫ বলে তিনটি চার ও এক ছক্কায় ৩০ রান করেছেন লিভিংস্টোন। চারে নেমে ১৬ বলে দুই চার ও এক ছয়ে ২৩ রান করেছেন কলিন ইনগ্রাম। কিন্তু টপ অর্ডার ভালো সূচনা এনে দিলেও মিডল ও লোয়ার অর্ডার সেটার মূল্য দিতে পারেনি। ধসে পড়ে করাচির ব্যাটিং অর্ডার।

১৬২ রানের চ্যালেঞ্জিং লক্ষ্যমাত্রায় ব্যাট করতে নেমে শুরুতেই পা হড়কায় ইসলামাবাদ। পরে ক্যামেরন ডেলপোর্ট, অ্যালেক্স হেলস, হুসাইন তালাত, আসিফ আলি ও ফাহিম আশরাফের ছোটখাটো ঝড়ের সুবাদে জয়ের বন্দরে পৌঁছে যায় মোহাম্মদ স্যামির দল।

২৭ বলে চারটি চার ও দুই ছক্কায় ৩৮ রান করেছেন ডেলপোর্ট। ৪২ বলে পাঁচটি চার ও এক ছক্কায় ৪১ রান করেছেন হেলস। ১৯ বলে তিনটি ছক্কা ও এক চারে ৩২ রানের ক্যামিও ইনিংস খেলেছেন তালাত। আট বলে ১৭ রানে আউট হয়েছেন ফাহিম। তবে দলকে জিতিয়েই উইকেট ছেড়েছেন আসিফ। ১০ বলে দুটি ছক্কা ও এক চারে ২৪ রানের বিধ্বংসী ইসিংস খেলেছেন তিনি।

এই জয়ে ফাইনালের টিকিটের আশা বাঁচিয়ে রাখল ইসলামাবাদ। বিদায় নিল করাচি কিংস। আজ করাচির একই মাঠে দ্বিতীয় এলিমিনিনেটর ম্যাচে পেশোয়ার জালমির মুখোমুখি হবে ইসলামাবাদ ইউনাইটেড। প্রথম কোয়ালিফায়ার ম্যাচে পেশোয়ারকে ১০ রানে হারিয়ে ইতোমধ্যে ফাইনালে উঠে গেছে কোয়েটা গ্ল্যাডিয়েটর্স। ১৭ মার্চ ফাইনালে প্রতিপক্ষ হিসেবে কাকে পাচ্ছে তারা? উত্তরটা মিলে যাবে আজ রাতেই।

sheikh mujib 2020