advertisement
আপনি দেখছেন

পুরোনো বিতর্ক এবং তা নিয়ে সৃষ্ট নানা জটিলতা এখনো কেটে যায়নি। শেষ হয়নি নিষেধাজ্ঞার মেয়াদও। এর মধ্যেই নতুন বিতর্কের জন্ম দিলেন দেশের সেরা ক্রিকেটার সাকিব আল হাসান। চলমান ঢাকা প্রিমিয়ার ডিভিশন ক্রিকেট লিগের খেলায় আম্পায়ারারের আথে অসাদাচরণ করেছেন তিনি। একই দিনে বিতর্ক সৃষ্টি করেছেন অবৈধ বোলিং অ্যাকশনের জন্য আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে নিষিদ্ধ থাকা সোহাগ গাজী।

আম্পায়ারের সাথে বাকবিতণ্ডায় জড়িয়ে সাকিবকে গুনতে হবে ১০ হাজার টাকা জরিমানা। অখেলোয়াড়সূলভ আচরণের দায়ে সোহাগকেও গুনতে হচ্ছে একই পরিমাণ জরিমানা। সাথে এক ম্যাচের জন্য নিষিদ্ধও থাকতে হচ্ছে তাকে।

বুধবার বিকেএসপিতে খেলা ছিলো সাকিবের দল লিজেন্ডস অপ রূপগঞ্জের। ওই খেলায়ই বোলিংয়ের সময় আম্পায়ারের সাথে ঝামেলা বাঁধান সাকিব। তার বোলিংয়ের সময় ব্যাটিংয়ে ছিলেন জিম্বাবুয়ান রিক্রুট ব্রেন্ডন টেলর। প্রাইম ব্যাংকের হয়ে খেলছেন তিনি। সাকিবের একটি বল টেলরের প্যাডে লাগলে এলবিডব্লিউর আবেদন করেন সাকিব, কিন্তু আম্পায়ার তাদের আবেদন নাকচ করে দেন। এ নিয়েই বিতর্ক বাঁধান সাকিব। পরে এ নিয়ে ম্যাচ রেফারির কাছে অভিযোগ করেন আম্পায়ার। পরে সাকিব অপরাধ স্বীকার করে নিলে শুনানি ছাড়াই তাকে ১০ হাজার জরিমানা করেন ম্যাচ রেফারি।

এদিকে সোহাগ গাজী খেলছিলেন তার দল শেখ জামাল ধানমণ্ডি ক্লাবের হয়ে। মোহামেডানের বিপক্ষে ম্যাচে তিনি বিসিবির আচরণবিধির ২.২.৮ ধারা ভাঙেন। যেখানে বলা আছে, ম্যাচ চলার সময় কোনো অশ্লীল ভাষা ব্যবহার কিংবা অঙ্গভঙ্গি করা যাবে না, যেটা প্রতিপক্ষের খেলোয়াড়, কর্মকর্তা, আম্পায়ার, ম্যাচ রেফারি কিংবা ম্যাচসংশ্লিষ্ট কারও জন্য অপমানজনক হয়। সোহাগ এই ধারা ভাঙায় তাকে ১০ হাজার টাকা জরিমানা ও এক ম্যাচের জন্য সাসপেন্ড করা হয়।

sheikh mujib 2020