advertisement
আপনি দেখছেন

জিততে হলে ১৭৪ রান করতে হতো রংপুর রাইডার্সকে। কিন্তু এতো রান তাড়া করার জন্য যে শর্ত তার কোনটিই পূরণ করতে পারেনি দলটি। শুরুটা ভালো হয়নি, পরবর্তী ব্যাটসম্যানরাও হাল ধরতে পারেনি। সব মিলিয়ে অনেকটা লজ্জাই পেল রংপুর। নিজেদের প্রথম ম্যাচে কুমিল্লা ওয়ারিয়র্সের বিপক্ষে ১০৫ রানে হেরেছে দলটি।

al amin comilla 2 wicket

বিশাল টার্গেট তাড়া করতে নেমে দলীয় ১৫ রানের মাথায় আফগানিস্তানের হার্ডহিটার মোহাম্মদ শাহজাদকে (১৩) হারায় রংপুর। অপর ওপেনার নাঈম শেখও সুবিধা করতে পারেননি। ২৭ বলে ১৭ রান করেছেন নাঈম। মজার ব্যাপার এই তরুণ ব্যাটসম্যানই রংপুরের পক্ষে সর্বোচ্চ রান সংগ্রাহক!

শাজহাদ নাঈম ছাড়া রংপুরের পক্ষে দুই অঙ্কের কোটা স্পর্শ করতে পেরেছেন কেবল মোহাম্মদ নবি (১১)। ইনজুরির কারণে রংপুরের তরুণ ব্যাটসম্যান জাকির হোসেন ব্যাটিং করতে পারেননি। ফলে দলটি ১৪ ওভারে নবম উইকেট হারালে সেখানেই অলআউট নিশ্চিত হয়ে যায়।

কুমিল্লার হয়ে তিন উইকেট পেয়েছেন আল-আমিন হোসেন। দুটি করে উইকেট নিয়েছেন সৌম্য সরকার ও সানজামুল ইসলাম। একটি করে উইকেট করে মুজিবুর রহমান ও আবু হায়দার রনি।

প্রথম ইনিংস:

টস জিতে প্রথমে ব্যাটিং করতে নেমে নির্ধারিত ২০ ওভারে সাত উইকেট হারিয়ে ১৭৩ রান তোলে কুমিল্লা। শুরুটা অবশ্য ভালো হয়নি দলটির। প্রথম বলেই উইকেট হারানো কুমিল্লা ষষ্ঠ উইকেট হারায় ৮৯ রানে।১৭ ওভার শেষে দলটির রান ছিল ১০৪। সেখান থেকে বিধ্বংসী এক ইনিংস খেলে কুমিল্লাকে ১৭৩ পর্যন্ত নিয়ে গেছেন হঠাৎ দলটির অধিনায়ক বনে যাওয়া দাসুন শানাকা।

ছয়ে ব্যাটিং করতে নামা লঙ্কান ক্রিকেটার মাত্র ৩১ বলে ৭৫ রান করে অপরাজিত থাকেন। তার ইনিংসে চার ৩টি, ছক্কা ৯টি। শেষ তিন ওভারে ৬৫ রান তোলে কুমিল্লা। তার মধ্যে শানাকা একাই তুলেছেন ৬৪!

দুদলের পরবর্তী ম্যাচ:

জয় দিয়ে বিপিএল শুরু করা কুমিল্লা ওয়ারিয়ার্সের পরবর্তী ম্যাচ আগামী শুক্রবার। বাংলাদেশ সময় সন্ধ্যা সাতটায় ঢাকা প্লাটুনের মুখোমুখি হবে দলটি। আর নিজেদের প্রথম ম্যাচে বাজেভাবে হারা রংপুর তাদের দ্বিতীয় ম্যাচ খেলতে নামবে। বাংলাদেশ সময় দেড়টায় সেদিন চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্সের মুখোমুখি হবে দলটি।