advertisement
আপনি দেখছেন

যুব বিশ্বকাপটা স্বপ্নের মতোই কেটেছে বাংলাদেশের। গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হয়ে পরের রাউন্ডে উঠা। তারপর দক্ষিণ আফ্রিকা, নিউজিল্যান্ডের মতো দলকে হারিয়ে স্বপ্নের ফাইনালে। ফাইনালে টুর্নামেন্টের সবচেয়ে সফল দল ভারতকে হারিয়ে ইতিহাসের প্রথমবারের মতো বিশ্বচ্যাম্পিয়ন হওয়ার স্বাদ পেয়েছে বাংলাদেশ। রীতিমতো সিনেমাটিক একটা ব্যাপার। তবে এতো অর্জনের মাঝে হালকা কলঙ্কের দাগও আছে।

shoriful islam denied yashasvi jaiswal successive centuries

ফাইনালে অপ্রীতিকর ঘটনার কারণে নিষিদ্ধ হয়েছেন বাংলাদেশের বিশ্বজয়ী তিন ক্রিকেটার। ভারতকে হারানোর পর বাঁধভাঙা উল্লাসে ভেটে পড়েন বাংলাদেশি ক্রিকেটাররা। তাতে দুই দলের ক্রিকেটারদের মধ্যে মাঠেই লেগে যায় বাক-বিতণ্ডা। ধাক্কাধাক্কির মতো ঘটনাও ঘটে। পরে বাংলাদেশের তিন ক্রিকেটার ও ভারতের দুই ক্রিকেটারকে বড় শাস্তি দিয়েছে আইসিসি। এসব কারণে বোর্ডকর্তাদের বকুনিও হজম করতে হচ্ছে যুবাদের।

তবে সেদিনের ওই ঘটনার সূত্রপাত নাকি আরো অনেক আগে। তেমনটাই জানালেন যুব দলের তরুণ দীর্ঘদেহী পেসার শরিফুল ইসলাম। তিনি বলেছেন, ঘটনার সূত্রপাত অনেক আগে। বিশ্বকাপের আগে বাংলাদেশের বিপক্ষে ওয়ানডে সিরিজ খেলেছে ভারতীয় যুবারা। ওই সিরিজে বাংলাদেশকে হারানোর পর বাজেভাবে উদযাপন করে ভারতীয় যুবারা। বাংলাদেশি তরুণরা নাকি তেঁতে ছিলেন সেই কারণেই।

শরিফুল বলেন, ‘অতীতে আমরা দুটো ম্যাচ ওদের (ভারত) কাছে হেরে গিয়েছিলাম। ওই দুটো হারের অনুভূতি আমার পক্ষে ব্যাখ্যা করা সম্ভব নয়। জেতার পর ওরা কী করেছিল, সেই ঘটনাগুলো যুব বিশ্বকাপ ফাইনালে নামার আগে আমার মনে পড়ে গিয়েছিল। ওই দুটো ম্যাচ জিতে আমাদের সামনে ওরা আনন্দে ফেটে পড়েছিল। আমরা কিছুই বলতে পারিনি তখন। তার পর থেকে আমরা অপেক্ষায় ছিলাম। ওদের বিরুদ্ধে কবে ফাইনালে খেলতে নামব, তার দিন গুনছিলাম।’

তরুণ এই পেসার বলেন, ‘ফাইনালে নিজেদের সেরাটা উজাড় করে দিতে চেয়েছিলাম। সেটা আমরা দিয়েছি। ম্যাচ হারার পর তাদের সামনে কেউ যদি ওভাবে উল্লাস করে, উৎসবে মেতে ওঠে, তা হলে কেমন লাগে সেটা নিশ্চয় এখন টের পাচ্ছে ভারত।’

উল্লেখ্য, গত ৯ ফেব্রুয়ারি যুব বিশ্বকাপের ফাইনালে ভারতকে তিন উইকেটে হারিয়ে শিরোপা জেতে বাংলাদেশ। 

sheikh mujib 2020