advertisement
আপনি দেখছেন

জুয়াড়ির প্রস্তাব গোপন করার দায় নিয়ে দুই বছরের জন্য নির্বাসিত হয়েছেন সাকিব আল হাসান। তাকে ছাড়াই চলছে বাংলাদেশের পথচলা। স্বাভাবিকভাবেই ভারত ও পাকিস্তান সফরে ছিলেন না সাকিব। তার শূন্যতা হাড়ে হাড়ে টের পেয়েছে বাংলাদেশ দল।

mushfiq and mominul 2020

দুঃসময়ের ক্রান্তিকালে টেস্ট সংস্করণের নেতৃত্বের জোয়াল পড়েছে মুমিনুল হকের ছোট্ট কাঁধে। দায়িত্ব নেওয়ার পর থেকেই টেস্ট ক্রিকেটে নাকানি চুবানি খেতে হচ্ছে তার দলকে। অবশেষে স্বস্তির জয়ে ফিরেছে বাংলাদেশ। আজ ঢাকা টেস্টে জিম্বাবুয়েকে ইনিংস ও ১০৫ রানের ব্যবধানে জিতে টানা ছয় টেস্ট হারের বৃত্ত ভাঙল টাইগাররা।

মুমিনুলের নেতৃত্ব দেওয়ার কাজটা কঠিন হয়ে পড়ে সাকিবের নিষেধাজ্ঞা। পাকিস্তান সফর থেকে নিজেকে গুটিয়ে নিয়েছেন মুশফিকও। তাকে ছাড়া দুই দফা সফরে গিয়ে তিক্ত অভিজ্ঞতা নিয়ে এসেছে বাংলাদেশ দল। আগামী এপ্রিলে সিরিজের দ্বিতীয় ও শেষ টেস্ট খেলতে তৃতীয় দফায় পাকিস্তানে যাবে টাইগাররা। আগামী ৫ এপ্রিল করাচিতে শুরু হবে ম্যাচটি।

ওই টেস্টে তিনটি দ্বিশতকের মালিক মুশফিককে খুব করেই চাইছেন মুমিনুল। সম্ভব হলে সাকিবকেও। আজ ম্যাচ শেষে সংবাদ সম্মেলনে বাংলাদেশ অধিনায়ক বলেছেন, ‘একজন অধিনায়ক হিসেবে আমি তো সব সময় চাই…সাকিব ভাই পর্যন্ত আসুক। যদিও সেটা সম্ভব নয়। অবশ্যই আমি মুশফিক ভাইকে চাই পাকিস্তান সিরিজে।’