advertisement
আপনি দেখছেন

উইকেট ব্যাটিংয়ের জন্য দারুণ সহায়ক ছিল। বাংলাদেশ কাজে লাগিয়েছে কন্ডিশনের পুরো সুযোগ। উল্টো চিত্র জিম্বাবুয়ে শিবিরে। ব্যাটিং উইকেটে টাইগার বোলারদের বিরুদ্ধে খাবি খেয়েছে তারা। যেটার খেসারত তাদের দিতে হয়েছে বাংলাদেশের বিরুদ্ধে সবচেয়ে বড় ব্যবধানে হেরে।

zimbabwe celebration 2020

আজ সিলেট আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামে প্রথম ওয়ানডেতে বাংলাদেশের কাছে ১৬৩ রানের ব্যবধানে হেরেছে জিম্বাবুয়ে। রানের হিসেবে টাইগারদের কাছে এটাই সবচেয়ে বড় ব্যবধানে হার। এই হারে নিজেদের ব্যাটসম্যানদের ওপর দায় চাপালেন ম্যাচ শেষে সংবাদ সম্মেলনে আসা দলটির প্রতিনিধি রেজিস চাকাবা।

টস জিতে আগে ব্যাট করতে নেমে ছয় উইকেটে ৩২১ রান করে বাংলাদেশ। জিম্বাবুয়ের বিরুদ্ধে এটাই টাইগারদের সর্বোচ্চ রানের ইনিংস। স্বাগতিকদের এই রানের চাপায় শেষ হয়ে গেছে জিম্বাবুয়ে। বিশাল লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে ম্যাচের ৬৫ বল বাকি থাকতে ১৫২ রানে গুটিয়ে গেছে জিম্বাবুয়ে।

ম্যাচ শেষে ব্যাটিং বিভাগকে ‍দুষলেন চাকাবা। সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেছেন, ‘আমরা হতাশ। ভালো ব্যাটিং করতে পারিনি। ব্যাটিংয়ের জন্য উইকেটটা দারুণ ছিল। কিন্তু আমরা তা কাজে লাগাতে পারিনি। যেটার খেসারত আমাদের এভাবে হেরে দিতে হয়েছে।’

চাকাবা চাইলে নিজেদের সেরা দুই খেলোয়াড়কে দলে না পাওয়ার অজুহাত দেখাতে পারতেন। চোটের কারণে ক্রেইগ আরভিনকে এদিন একাদশে পায়নি তারা। পারিবারিক কারণে আজ ম্যাচে ছিলেন না শেন উইলিয়ামস। তবে এ যুগলের অনুপস্থিতিকে কোনো অজুহাত হিসেবে দেখতে নারাজ চাকাবা।

অবশ্য ব্যাটসম্যানদের কাঠগড়ায় দাঁড় করালেও বাংলাদেশের বোলারদের ভূয়সী প্রশংসা করেছেন চাকাবা। তিনি বলেছেন, ‘বাংলাদশের বোলাররা দুর্দান্ত বোলিং করেছেন। তারা প্রশংসার দাবিদার। তারা আমাদের জন্য ম্যাচটা আরো কঠিন করে দিয়েছেন।’

চাকাবা ঠিকই বলেছেন। এদিন বাংলাদেশি বোলাররা দারুণ পারফর্ম করেছেন। বিশেষ করে মোহাম্মদ সাইফুদ্দিন। প্রথম পাঁচ ওভারে ছয় রান দিয়ে তিন উইকেট তুলে নিয়েছিলেন তিনি। যদিও পরের দুই ওভারে বল হাতে উদার হয়ে উঠেছিলেন এই অলরাউন্ডার। মাশরাফি বিন মর্তুজা ও মেহেদি হাসান মিরাজের শিকার দুটি করে। খালি হাতে ফেরেননি মুস্তাফিজরাও।

তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজে বাংলাদেশ এখন ১-০ ব্যবধানে এগিয়ে। চাকাবা আশাবাদী আগামী মঙ্গলবার দ্বিতীয় ওয়ানডেতে ফিরে আসবে তারা। তিনি জানান পরের ম্যাচে দলে যোগ দিতে পারেন আরভিন ও উইলিয়ামস।

sheikh mujib 2020