advertisement
আপনি দেখছেন

বাংলাদেশ দলের অন্যতম ব্যাটসম্যান মুশফিকুর রহিম। পাশাপাশি তিনি একজন ঝানু উইকেটরক্ষকও। অধিনায়কের দায়িত্ব পালন করেছেন এক সময়। বগুড়ার ছেলে মুশফিক তার জীবনের ছয় বছর কাটিয়েছেন বাংলাদেশ ক্রীড়া শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে (বিকেএসপি)। ২০০০ সালে ভর্তির পর তার গড়ে ওঠার পেছনে অন্যতম কারিগর ছিলেন মতিউর রহমান স্যার। বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসানও তার ছাত্র। বিকেএসপিতে মতিউর রহমান এক নামেই পরিচিত।

moti sir

প্রিয় মতি স্যার মুশফিককে নিয়ে গণমাধ্যমে বলেন, ছোট বেলাতেই বুঝতে পেরেছিলাম সে প্রচণ্ড মেধাবী। যে কাজই দেওয়া হতো তা মনোযোগ দিয়ে করতো এবং সহজেই বিষয়টা রপ্ত করতো। তিনি আরো বলেন, খারাপ সময় গেলে কিংবা বিপদে পড়লে মুশফিক আমার কাছে ছুটে আসে। যখন রান পাচ্ছে না তখনই যোগাযোগ করে। ওকে সাহায্য করতে পেরে আমিও নিজেকে ধন্য মনে করি।

মুশফিকের নেতৃত্ব নিয়ে বিকেএসপির এই শিক্ষক বলেন, শুরু থেকেই দুর্দান্ত নেতৃত্ব গুণ ছিল ওর মধ্যে। তবে ওকে অধিনায়ক হিসেবে দেখার চেয়ে, ও দলকে আরও ভালো সার্ভিস দিক সেটাই চাই আমি। কারণ অধিনায়ক হলে অতিরিক্ত চাপ থাকে ওর ওপর।

মুশফিককে নিয়ে একটা মজার ঘটনাও বলেন তিনি- একদিন লাঞ্চ আসতে দেরি হচ্ছিল।  আমি সবাইকে বললাম বাইরের কোনো খাবার খাবে না। অনেকে ভাজাপোড়া খায়, যেটা ফিটনেসের জন্য সমস্যা। কোনায় গিয়ে দেখি মুশফিক আচার খাচ্ছে। রাগে আমি তার কান ধরে টান দিই। ও এখনো বলে, স্যার আপনার কান টানার ঘটনা আমার মনে আছে।

উল্লেখ্য, ২০০৬ সালে অভিষিক্ত এই ক্রিকেটার এখন পর্যন্ত বাংলাদেশের হয়ে খেলেছেন ৩৭৪ আন্তর্জাতিক ম্যাচ। করেছেন ১১৮৬৯ আন্তর্জাতিক রান।