advertisement
আপনি দেখছেন

ফর্মে থেকে অবসর নেয়াটা নতুন কিছু নয়। এর আগেও অনেক ক্রিকেটার এই পথে হেঁটেছেন। তবে ক্রিকেট ছাড়ার আগে এর কারণটাও ভক্তদের কাছে পরিষ্কার করে গেছেন তারা। কিন্তু নিজের অবসরের পেছনে কোন কারণ দাঁড় করাননি দক্ষিণ আফ্রিকার সাবেক অধিনায়ক এবি ডি ভিলিয়ার্স। ২০১৮ সালের মে মাসে হঠাৎ করেই আন্তর্জাতিক ক্রিকেটকে গুডবাই বলেন মি. ৩৬০ ডিগ্রি। 

ab de villiers international comebackএবি ডি ভিলিয়ার্স

অবশেষে নিজের অবসরের নেপথ্যের কাহিনী ফাঁস করলেন ভিলিয়ার্স। দুই বছরেরও অধিক সময় পর জানালেন ২০১৫ বিশ্বকাপ ব্যর্থতায় ছিল তার ক্রিকেট ছাড়ার মূল কারণ। সেবারের আসরে শিরোপার অন্যতম দাবিদার ছিল প্রোটিয়ারা। কিন্তু সেমিফাইনালেই তাদের স্বপ্নের সমাধি ঘটে যায়। নিউজিল্যান্ডের সাথে বৃষ্টিবিঘ্নিত সে ম্যাচে ডাকওয়ার্থলুইস পদ্ধতিতে হেরে যায় চোকার্স খ্যাত দক্ষিণ আফ্রিকা। যা মেনে নিতে কষ্ট হয়েছিল ভিলিয়ার্স-ডু প্লেসিসদের। তাই মাঠেই কেঁদেছিলেন তারা। 

সম্প্রতি ক্রিকবাজকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে নিজের অবসর নিয়ে কথা বলেন এই হার্ডহিটার ব্যাটসম্যান, ‘আমার অবসরের জন্য ২০১৫ বিশ্বকাপের ভূমিকা অনেক। গোটা বছরটাই আমার জন্য খুব খারাপ গেছে। একটা পূর্ণাঙ্গ দল হিসেবে আবার আমাদের শুরু করা প্রয়োজন ছিল। কিন্তু আমি সেটা পারিনি। বিশ্বকাপের ক্ষত আমাকে আকড়ে ধরে। অনেক কষ্ট পাচ্ছিলাম। কারণ আমি আবেগপ্রবণ। আর এটা আমার চিন্তায় প্রভাব ফেলে।'

amla de villiars south africaদক্ষিণ আফ্রিকা ক্রিকেট দলের কয়েজন

খেলতে গেলে জীবনে অনেক হারতে হয়। কিন্তু অস্ট্রেলিয়া-নিউজিল্যান্ড বিশ্বকাপের স্মৃতি ভুলতে পারেননি ভিলিয়ার্স। বার বার শুধু ওই ব্যর্থতাই চোখের সামনে ভেসে আসছিল। তাই ভালো খেলতে থাকলেও কাউকে কিছু না জানিয়েই অবসরের মতো কঠিন সিদ্ধান্ত নেন তিনি, 'ওই ব্যর্থতার স্মৃতি আমি ভুলতে পারছিলাম না। তবুও খেলে গেছি। যা অনেক কঠিন ছিল। মনের বিরুদ্ধেই মাঠে নামতাম। অবসর নিতে চাইনি। ব্যাটিংটা ভালো হচ্ছিল। কিন্তু অতীতের কথা মনে রয়েই গেছে। যা ক্রিকেট ছাড়তে আমাকে বাধ্য করেছে।'

sheikh mujib 2020