advertisement
আপনি দেখছেন

জয়ের জন্য শেষ ৩০ বলে রাজস্থান রয়্যালসের দরকার হয় ৮৪ রান। এটা সম্ভব হবে তা হয়তো কল্পনা করেনি কেউ। কিন্তু এটাকেই বাস্তবে রুপ দিলেন রাহুল তিওয়াতিয়া এবং জোফরা আর্চার। দুজন মিলে ১৬ থেকে ১৯, এই ৪ ওভারে করেন ৮২ রান। তাতেই কিংস ইলেভেন পাঞ্জাবের ২২৩ রান টপকে ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগে (আইপিএল) রেকর্ড জয় পায় স্টিভ স্মিথের দল।

rahul tewatiaরাহুল তিওয়াতিয়া

দুবাইতে টস হেরে আগে ব্যাট করতে নেমে দুর্দান্ত শুরু করে পাঞ্জাবের দুই ওপেনার আগারওয়াল এবং রাহুল। শুরু থেকেই প্রতিপক্ষ বোলারদের উপর মারমুখি হন তারা। গড়েন ১৮৩ রানের জুটি। ৫০ বলে ১০৬ রান করে আউট হন আগারওয়াল।

এরপর ক্রিজে টিকেননি রাহুলও। পরের ওভারেই সাজঘরে ফেরেন এই ওপেনার। তার আগে করেন ৫৪ বলে ৬৯ রান। শেষদিকে নিকোলাস পুরানের ছোট্ট ঝড়ো ইনিংসে ২২৩ রানের পুঁজি পায় পাঞ্জাব। রাজস্থানের হয়ে স্যাম কারান এবং রাজপুত নেন একটি করে উইকেট।

tewatia samonতিওয়াতিয়া ও স্যামসন

জবাব দিতে নেমে শুরুতেই কটরেলের বলে বিদায় নেন জস বাটলার। এরপর ইনিংস মেরামতের দায়িত্ব নেন স্মিথ এবং স্যামসন। দুইজনে মিলে গড়েন ৮১ রানের জুটি। এরপর ফিফটি হাঁকিয়ে আউট হন দলটির অধিনায়ক।

অন্যপ্রান্তে ঠিকই মারমুখি ব্যাট চালাতে থাকেন স্যামসন। ২৭ বলে অর্ধশতক করেন এই হার্ডহিটার। মোহাম্মদ সামির বলে আউট হওয়ার আগে ৪২ বলে ৪ চার এবং ৭ ছয়ে খেলেন ৮৫ রানের টর্নেডো ইনিংস।

স্যামসনের বিদায়ের পর আগ্রাসী রুপ ধারণ করেন তিওয়াতিয়া। শেলডন কটরেলের এক ওভারে মারেন পাঁচটি ছয়। শেষ পর্যন্ত খেলেন ৫৩ রানের ইনিংস। অন্যপ্রান্তে আর্চারও হাঁকান দুটি ওভার বাউন্ডারি। তাতেই চার উইকেটের জয় পায় প্রথমবারের চ্যাম্পিয়নরা।

sheikh mujib 2020