advertisement
আপনি দেখছেন

জাতীয় দলের খেলা বাদ দিয়ে আইপিএলকে বেছে নেয়ায় সাকিব আল হাসানকে নিয়ে যখন বিতর্ক তুঙ্গে ঠিক তখনই বেরিয়ে এলো আরো এক চাঞ্চল্যকর খবর। এতদিন সবাই জানতো যে, সাকিবকে কলকাতা নাইট রাইডার্স কিনে নেয়ার পর বিসিবি থেকে তার ছুটি মঞ্জুর হয়। কিন্তু ভেতরের সূত্র বলছে, নিলামের আগেই আইপিএলের পুরো সিজন খেলার ছাড়পত্র পেয়ে যান তিনি।

shakib al hasan kkrসাকিব আল হাসান

জানা গেছে, ১৮ ফেব্রুয়ারি চেন্নাইয়ে নিলাম অনুষ্ঠানের আগেই বিসিসিআই থেকে আইপিএলের সব ফ্র্যাঞ্চাইজিকে জানিয়ে দেয়া হয়েছিল যে, শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে সিরিজ থাকায় বাংলাদেশি ক্রিকেটারদের ১৯ মে’র পর আর পাওয়া যাবে না। ন্যাশনাল ডিউটির জন্য তাদের ছেড়ে দিতে হবে।

বিসিবি প্রেসিডেন্ট নাজমুল হাসান পাপনও আজ সোমবার স্পষ্ট করে দিয়েছেন যে, আইপিএলের পুরো সিজন খেলার জন্যই সাকিবকে অনুমতি দেয়া হয়েছে। আর সেটা যে ইচ্ছে না থাকা সত্ত্বেও দিতে হয়েছে তা তার কথাতেই পরিষ্কার।

কিন্তু এই অনুমতি সাকিব কীভাবে এবং কবে আদায় করে নিয়েছেন তা নিয়ে নানা প্রশ্ন উঠেছে। বিশেষ করে, আইপিএল সংশ্লিষ্ট সূত্র থেকে দেশের শীর্ষস্থানীয় একটি গণমাধ্যম জানতে পারে যে, সাকিব যে আইপিএলের পুরো সিজন খেলতে পারবেন তা তিনি নিলামের আগেই ফ্র্যাঞ্চাইজিগুলোর কাছে জানিয়েছিলেন।

ক্রিকেট বিষয়ক ওয়েবসাইট ক্রিকবাজ জানায়, গত ১৬ ফেব্রুয়ারি রাতে ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ড আইপিএলের সব ফ্র্যাঞ্চাইজিকে একটি ‘অ্যাডভাইজরি’ পাঠায়। সেখানে স্পষ্ট করে বলা হয় যে, কোনো বাংলাদেশি ক্রিকেটারকে কিনলে তাদের ১৯ মে'র পর ছেড়ে দিতে হবে। এর বাইরে অন্য দেশের খেলোয়াড়দের পুরো সিজন পাওয়া যাবে বলে ক্ল্যারিফাই করে দেয় বিসিসিআই।

shakib al hasan kkr1সাকিব আল হাসান

তার মানে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি) তাদের যা তথ্য দিয়েছে, তার ভিত্তিতেই বিসিসিআই এ নির্দেশনা দেয়।

এখন প্রশ্ন হলো- এর দেড় দিন পর নিলামে কলকাতা রাইট রাইডার্স সাকিবকে ৩ কোটি ২০ লক্ষ রুপিতে কিনে নেয়। সাকিবকে যে তারা পুরো সিজন পাচ্ছে সেটা জেনেই বিট করে। এখন কীভাবে তারা এ ব্যাপারে শিওর হলো সেটা নিয়েই তৈরি হয়েছে ধোঁয়াশা।

ফ্র্যাঞ্চাইজিটির একটি সূত্র জানায়, নির্দিষ্ট কিছু ক্যালকুলেশন করেই সাকিবকে দলে নেয়া। তাছাড়া লিগের শেষ দিকের গুরুত্বপূর্ণ পর্বে তার অভিজ্ঞতা যেন কাজে লাগানো যায় সেটা নিলামের সময় অবশ্যই মাথায় ছিল।

পূর্ণাঙ্গ সূচি প্রকাশ না পেলেও প্রাথমিক সিদ্ধান্ত অনুযায়ী আগামী ১১ এপ্রিল থেকে শুরু হয়ে ৬ জুন অবধি চলবে আইপিএলের এবারের আসর। ফলে সাকিবকে পাবে না জানলে তাকে কেনার ঝুঁকি নিতো না কেকেআর।

এখন পরিসংখ্যান এটাই দাঁড়ায় যে, ১৬ ফেব্রুয়ারি রাতে ভারতীয় বোর্ডের চিঠি আর ১৮ ফেব্রুয়ারি বিকেলে নিলাম অনুষ্ঠান। এর মাঝেই কোনো একটা সময় বিসিবি থেকে ছুটি আদায় করে নেন সাকিব। যা প্রকাশ পায় নিলামের পরদিন ১৯ ফেব্রুয়ারি। কীভাবে তিনি এই ছুটি মঞ্জুর করেছেন তা কেবল সাকিব ও ক্রিকেট বোর্ডই ভালো বলতে পারবেন।

sheikh mujib 2020