advertisement
আপনি দেখছেন

অগ্রহণযোগ্য ও বিস্ময়কর এক কাণ্ড ঘটিয়ে বিপদের মুখে পড়েছেন সাকিব আল হাসান। ঢাকা প্রিমিয়ার ডিভিশন টি-টোয়েন্টি ক্রিকেট লিগে মোহামেডানের অধিনায়ক শুক্রবার আবাহনীর বিপক্ষে ম্যাচে যে আচরণ করেছেন, তার জন্য একের পর এক সমালোচনার তীর ধেয়ে আসছে তার দিকে। ঘটনা এখানে আপাতত শেষ হচ্ছে না। সাকিবকে পাঁচ ম্যাচের জন্য নিষিদ্ধ করতে পারে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি)।

shakib could face a five matches long ban

চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী আবাহনীর বিপক্ষে ম্যাচটি ৩১ রানে জিতে মাঠ ছেড়েছে মোহামেডান। কিন্তু সাকিবের ঘটনা ম্যাচের অন্যান্য সব বিষয়কে পেছনে ফেলে দিয়েছে।

ম্যাচের প্রথম ইনিংসে ব্যাটিং করে ১৪৫ রান করে মোহামেডান। এতে সর্বোচ্চ ৩৭ রান আসে সাকিবের ব্যাট থেকে। ব্যাট হাতে তার সময়টা মোটেও ভালো যাচ্ছিলো না। কিন্তু এ দিন দারুণ দৃঢ়তা দেখিয়েছেন। যদিও আরো বেশি রান পেতে পারতেন তিনি।

জবাব দিতে নেমে প্রথম ওভারেই দুটি উইকেট হারিয়ে ফেলে আবাহনী। এরপর দ্রুত পড়ে যায় আরো একটি উইকেট। ম্যাচের এই অবস্থায় আরো উইকেট নিতে মরিয়া হয়ে উঠেছিলো মোহামেডান। আর তাদের সামনে কাঁটা হয়ে দাঁড়িয়ে ছিলেন আবাহনীর অধিনায়ক মুশফিকুর রহিম।

পঞ্চম ওভারের পঞ্চম বলে সাকিবের একটি ডেলিভারে মুশফিকের প্যাডে গিয়ে লাগে। সাথে সাথে আউটের আবেদন করেন সাকিব। কিন্তু আম্পায়ার তার আবেদনে সাথে সাথে না করে দেন। ঠিক পাল্টা প্রতিক্রিয়ায় সাকিব স্টাম্পে লাথি মেরে বসেন।

shakib al hasan kicking off the stumps in dhaka league against abahani

ঘটনার আকস্মিকতায় বিস্ময়ে বিমূঢ় হয়ে যান আম্পায়ার। প্রেসবক্সে উপস্থিত জনা পঞ্চাশেক সাংবাদিকও প্রায় চুপ হয়ে যান। আবাহনী- মোহামেডানের ম্যাচটি সরাসরি সম্প্রচার করছিলো বিসিবি। ইউটিউব ও ফেসবুকের কল্যাণে সারা পৃথিবী কয়েক মিনিটের মধ্যেই সাকিবের কীর্তি দেখে ফেলে।

এক ওভারে বৃষ্টির কারণে আম্পায়ার খেলা বন্ধ করার নির্দেশ দেন। এ সময় আবার সাকিব আম্পায়ারের দিকে তেড়ে যান এবং বোলিং প্রান্তের তিনটি স্টাম্প তুলে ফেলে সজোরে মাটিতে আছড়ে ফেলেন।

বৃষ্টির কারণে মাঠ ছেড়ে যাওয়ার সময় আবাহনীর সমর্থকরা সাকিবকে উদ্দেশ্য করে কিছু একটা বলছিলেন। সাকিব তাদেরকে আঙুল তুলে ধমকাতে থাকেন। এ সময় আবাহনীর কোচিং স্টাফের সদস্য, বাংলাদেশের সাবেক অধিনায়ক খালেদ মাহমুদ সুজন সাকিবের দিকে তেড়ে যান। এরপর দুই দলের কয়েকজন ক্রিকেটার এসে তাদের দুজনকে দুদিকে নিয়ে যান। সব মিলিয়ে অত্যন্ত দৃষ্টিকটু এক দৃশ্যের অবতারণা হয়।

বৃষ্টির পর খেলা শুরু হওয়ার পর অবশ্য সাকিবকে স্বাভাবিক দেখা যায়। খালেদ মাহমুদের সঙ্গেও তাকে আলিঙ্গন করতে দেখা যায়। এ ছাড়া আম্পায়ারদের সাথেও তিনি স্বাভাবিক আচরণ করেন।

সাকিব অবশ্য এতো অল্পতে ছাড়া পাচ্ছেন না। সারা পৃথিবীর দর্শক এই ঘটনাকে ক্রিকেটের প্রতি সাকিবের অশোভন আচরণ হিসেবে ধরে নিয়েছেন। তারা বলছেন, সাকিব হয়তো বড় ক্রিকেটার, কিন্তু তিনি ক্রিকেটের চেয়ে বড় নন।

বিসিবি পরিচালক ও ক্রিকেট কমিটি অব ঢাকা মেট্রোপলিসের প্রধান কাজী ইনাম আহমেদ বলেছেন, সাকিবের ঘটনাটি অপ্রত্যাশিত ও ন্যাক্কারজনক ছিলো। তিনি আরো বলেন, ম্যাচ রেফারি ও আম্পায়ারদের প্রতিবেদনের ভিত্তিতে সাকিবের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।