advertisement
আপনি পড়ছেন

ঢাকা প্রিমিয়ার লিগের (সুপার লিগ) চারটি ম্যাচ খেলেই গত মাসে যুক্তরাষ্ট্রে উড়াল দিয়েছিলেন সাকিব আল হাসান। সেখানেই ঈদ উদযাপন করেছেন পরিবারের সাথে। গত ১০ মে দেশে ফিরেন শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে টেস্ট সিরিজ খেলতে। দেশে ফিরেই করোনা আক্রান্ত হয়ে পড়েন তিনি। বিসিবিও সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানিয়েছিল, চট্টগ্রামে প্রথম টেস্টটা খেলতে পারবেন না এ বাঁহাতি অলরাউন্ডার।

shakib got wicket after 10 monthsঅনুশীলন না করা সাকিবের সামর্থ্য দেখল চট্টগ্রাম

কিন্তু চারদিনের মধ্যে সুস্থ হয়ে যান সাকিব। করোনামুক্ত হয়ে যোগ দেন বাংলাদেশের টেস্ট দলে। ম্যাচের আগের দিন সাগরিকায় মাত্র ৪৫ মিনিট ব্যাটিং করেন । তাতেই একাদশে তার জায়গা পাকা হয়েছে। রোববার ম্যাচের প্রথম দিনে বোলিংও করেছেন এ বাঁহাতি স্পিনার। ইনিংসের ৩৫ ওভারের পর বোলিংয়ে আসেন তিনি। দিন শেষে ১৯ ওভার বোলিং করে ২৭ রান দিয়ে মূল্যবান ১ উইকেট তুলে নিয়েছেন সাকিব।

বাঁহাতি এ অলরাউন্ডারের সামর্থ্যে আস্থা রাখছেন বাংলাদেশের স্পিন কোচ রঙ্গনা হেরাথ। অনুশীলন না করেও ম্যাচ খেলতে নেমে নিজেকে প্রমাণ করেছেন সাকিব। হেরাথ আজ সংবাদ সম্মেলনে বলেছেন, ‘আমি ১০০ ভাগ আত্মবিশ্বাসী তার সামর্থ্য। কোনো অনুশীলন না করলেও তার ওপর আমার আস্থা থাকবে।’

অনুশীলনে শুধু ব্যাটিং করেছেন সাকিব, বোলিং করেননি। তারপরও আজ বোলিংয়ে দুর্দান্ত ছিলেন। হেরাথের মতে, এমন মানের ক্রিকেটার কমই আছে, ‘সাকিবের মানের ক্রিকেটার খুব বেশি নেই। সে হয়তো কোনো অনুশীলন করেনি। কিন্তু আজ তার প্রথম বলটি ছিল নিখুঁত, যা এককথায় অসাধারণ। আমাদেরও তার ওপর অনেক আস্থা।’

সাকিব থাকলে দলের সুবিধা অনেক। সংবাদ সম্মেলনে সেটিই তুলে ধরেছেন বাংলাদেশের স্পিন কোচ, ‘সাকিব থাকলে দলের মধ্যে ভালো একটা ভারসাম্য তৈরি হয়। সে না থাকলে আমাদের এমন কাউকে খুঁজে বের করতে হয়, যে ব্যাট ও বলে অবদান রাখতে পারবে। সে যদি সব সময় খেলে, তাহলে দলও সব সময় ভারসাম্যপূর্ণ হবে। আজ খুবই ভালো বল করেছে। সে-ই সবচেয়ে কম রান দেওয়া বোলার।’