advertisement
আপনি পড়ছেন

পড়তি ফর্মের সঙ্গে ইনজুরির যন্ত্রণা বয়ে বেড়াচ্ছিলেন অনেক দিন ধরে। দুই দিন আগেই ইংলিশ মিডিয়ায় খবর ছড়ায়, ইংল্যান্ডের নেতৃত্ব ছেড়ে দিচ্ছেন ইয়ন মরগান। কেউ কেউ আবার তার অবসরের কথাও লিখেছেন।

eoin morgan 2ইয়ন মরগান

অবশেষে গুঞ্জনই সত্যি হলো। মঙ্গলবার আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে বিদায় বলে দিয়েছেন ইংল্যান্ডের একমাত্র ওয়ানডে বিশ্বকাপ জয়ী অধিনায়ক মরগান। স্বাভাবিকভাবেই ইংল্যান্ডের ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টি দলের নেতৃত্বও ছেড়েছেন তিনি।

এক বিবৃতিতে মরগান বলেছেন, ‘ সবকিছু গুরুত্ব দিয়ে বিবেচনা করে আমি আন্তর্জাতিক ক্রিকেটকে বিদায় জানাচ্ছি। আমার ক্যারিয়ারের যে অংশটা সবচেয়ে বেশি উপভোগ করেছি, যে অংশে সাফল্য পেয়েছি, সে অধ্যায়টা শেষ করে দেওয়ার ঘোষণাটা দেওয়া সহজ ছিল না। তবে আমার মনে হয়েছে, এটাই বিদায়ের সঠিক সময়; ব্যক্তিগতভাবে আমার জন্য তো বটেই, ইংল্যান্ডের সীমিত ওভারের দলের জন্যও, যে দলকে আমি নেতৃত্ব দিয়ে এই জায়গায় এসেছি।’

ইংল্যান্ডের হয়ে দুটি বিশ্বকাপ জিতেছেন মরগান। ২০১০ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ জয়ী দলের সদস্য ছিলেন তিনি। ২০১২ সালে এ ফরম্যাটে ইংলিশদের অধিনায়কের দায়িত্ব পান। ২০১৬ সালে ভারতের মাটিতে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে ইংল্যান্ডকে ফাইনালেও তুলেছিলেন। ইডেন গার্ডেন্সে বেন স্টোকসের করা শেষ ওভারে কার্লোস ব্রেথওয়েটের দানবীয় ব্যাটিংটা না হলে ট্রফি নিয়েই ফিরতে পারতেন মরগান।

২০১৪ সালের ডিসেম্বরে অ্যালিস্টার কুকের হাত থেকে ওয়ানডে দলের নেতৃত্ব পান তিনি। ২০১৫ সালে বিশ্বকাপে বাংলাদেশের কাছে হেরে বাদ পড়ে ইংল্যান্ড। তারপরই মূলত মরগানের নেতৃত্বে ওয়ানডে ক্রিকেটে নতুন উচ্চতায় উন্নীত হয় ইংলিশরা। ওয়ানডে খেলার ধরনই বদলে যায় তাদের। যার ফলটা এসেছে ২০১৯ বিশ্বকাপে। মরগান ক্রিকেটের জন্মদাতা দেশটিকে আরাধ্য বিশ্বকাপ এনে দেন।

বর্ণিল এক অধ্যায় শেষ হলো মঙ্গলবার। সাড়ে সাত বছর ইংল্যান্ডকে নেতৃত্ব দিয়েছেন তিনি। মরগানের নেতৃত্বে ১২৬টি ওয়ানডে খেলেছে ইংল্যান্ড। ৭৬টিতে জয় পেয়েছে, হেরেছে ৪০টি। টাই দুটি এবং ফল হয়নি ৮টিতে। টি-টোয়েন্টিতে ইংল্যান্ডকে তিনি নেতৃত্ব দিয়েছেন ৭২ ম্যাচ। এর মধ্যে জয় ৪২টিতে, হার ২৭টিতে, টাই ২টি এবং ফল হয়নি ১টিতে।

১৬ বছরের ক্যারিয়ারে ২৪৮টি ওয়ানডে খেলেছেন মরগান। ৩৯.২৯ গড়ে ৭ হাজার ৭০১ রান করেছেন। যেখানে সেঞ্চুরি ১৪টি, হাফ সেঞ্চুরি ৪৭টি। এর মধ্যে অবশ্য ইংল্যান্ডের জার্সিতে করেছেন ৬ হাজার ৯৫৭ রান। ২০০৯ সালের আগে মরগান খেলতেন তার স্বদেশ আয়ারল্যান্ডের হয়ে। পরে ইংল্যান্ডের হয়ে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে নাম লেখান তিনি।

মরগান টি-টোয়েন্টি খেলেছেন ১১৫টি। ২৮.৫৮ গড়ে রান করেছেন ২ হাজার ৪৫৮। সেঞ্চুরি নেই, হাফ সেঞ্চুরি ১৪টি।

৩৫ বছর বয়সী এই ক্রিকেটার চলতি বছরের টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ খেলতে চেয়েছিলেন। কিন্তু ইনজুরি ও অফ ফর্মের কারণে অবসরের ঘোষণা দিতে হলো তাকে। তবে ঘরোয়া ক্রিকেট, ফ্রাঞ্চাইজি লিগে খেলা চালিয়ে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন তিনি।

সর্বশেষ নেদারল্যান্ডসের বিপক্ষে ওয়ানডেতে সর্বোচ্চ রানের বিশ্বরেকর্ড গড়েছিল ইংল্যান্ড। যেখানে মরগানের অবদান ছিল শূন্য। সিরিজের তৃতীয় ম্যাচটিও তিনি কুঁচকির ইনজুরিতে পড়ায় খেলেননি।