advertisement
আপনি পড়ছেন

হেড কোচ রাসেল ডোমিঙ্গোর প্রেসক্রিপশন ঠিক থাকলে হাসান মাহমুদ এখন ওয়েস্ট ইন্ডিজে থাকতেন। তাসকিন আহমেদ ফিট হওয়ায় সীমিত ওভারের ফরম্যাটে আর সুযোগ হয়নি এ তরুণ ফাস্ট বোলারের। ক্যারিবিয়ানে যেতে না পারলেও বাংলাদেশ টাইগার্সের ক্যাম্পে কঠোর পরিশ্রম করেছেন হাসান মাহমুদ।

hasan mahmudহাসান মাহমুদ

ম্যাচে নেমেই নিজেকে প্রমাণও করলেন ডানহাতি এ পেসার। রাজশাহীতে বৃহস্পতিবার বাংলাদেশ টাইগার্সের হয়ে বল হাতে জ্বলে উঠেছেন তিনি। তার দুরন্ত বোলিংয়ের তোপে কেঁপেছে এইচপির টপ অর্ডার। রাজশাহীর শহীদ কামরুজ্জামান স্টেডিয়ামে বাংলাদেশ টাইগার্স-এইচপির চারদিনের ম্যাচে হাসান মাহমুদ ১১ ওভারে ৩ মেডেনসহ ২৯ রানে ৩ উইকেট নেন।

বৃষ্টি বিঘ্নিত প্রথম দিনে খেলা হয়েছে মাত্র ৫৩ ওভার। সকালে প্রথম সেশনটা হয়েছিল নির্বিঘ্নেই। চা-বিরতির ঠিক আগেই শুরু হয় বৃষ্টির উপদ্রব। টানা বৃষ্টিতে ৫৫ মিনিট বন্ধ থাকার পর খেলা শুরু হয়। কিন্তু আবারও বৃষ্টি নামলে বন্ধ হয় ম্যাচ। পরে আম্পায়াররা দিনের খেলার ইতি ঘোষণা করেন।

বৃষ্টিতে বন্ধ হওয়ার সময় এইচপির স্কোর ছিল ৬ উইকেটে ১৭৬ রান। অধিনায়ক আকবর আলী ১৪ ও মৃত্যুঞ্জয় চৌধুরী ৩০ রানে অপরাজিত আছেন।

ইনিংসের শুরুতে ওপেনিংয়ে ৪৬ রানের জুটি পায় এইচপি। টসে হেরে ব্যাট করা দলটাকে প্রথম ধাক্কা দেন হাসান মাহমুদ। ইনিংসের ১০ম ওভারে তার জোড়া আঘাতে ফেরেন তানজিদ হাসান তামিম ও অমিত হাসান। দুজনেই উইকেটের পেছনে ক্যাচ দেন। দ্বিতীয় বলে তানজিদ ও চতুর্থ বলে অমিত আউট হন। পরে ইনিংস সর্বোচ্চ ৪৭ রান করা মাহফিজুল ইসলামও হাসান মাহমুদের শিকার হন।

এর বাইরে অফস্পিনার নাঈম হাসান তুলে নেন শাহাদাত হোসেন দিপু ও তৌহিদ হৃদয়ের উইকেট। আবু জায়েদ রাহীর শিকার হন আইচ মোল্লা। শাহাদাত হোসেন দিপু ২১, তানজিদ ১১, তৌহিদ হৃদয় ৭, আইচ মোল্লা ২৯ রান করেন। ওয়ান ডাউনে খেলা অমিত হাসান রানের খাতাই খুলতে পারেননি।