advertisement
আপনি পড়ছেন

কয়েক মাস পর স্প্যানিশ লা লিগার পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষে উঠে বসেছিল বার্সেলোনা। কিন্তু ‘সিংহাসনে’ বেশি দিন থাকা হল না লুইস এনরিকের দলের। পুঁচকে দেপোর্তিভো লা করুনার মাঠে গিয়ে জিততে পারেনি মেসি-সুয়ারেজরা। ২-১ গোলে হারের যন্ত্রণা নিয়ে মাঠ ছাড়তে হয়েছে বার্সাকে। কয়েক ঘন্টা পর ঘরের মাঠে রিয়াল বেটিসকে ২-১ গোলে হারিয়েছে রিয়াল মাদ্রিদ। যাতে আবারও টেবিলের শীর্ষে উঠে বসেছে রিয়াল।

messi suarez

লিগের ২৬ ম্যাচ খেলে শীর্ষে থাকা রিয়াল মাদ্রিদের পয়েন্ট ৬২। আর দুই নম্বরে নেমে যাওয়া বার্সেলোনার পয়েন্ট ৬০। বার্সা আবার একটা ম্যাচ বেশি খেলেছে।

আগের ম্যাচেই পিএসজির বিপক্ষে মহাকাব্য রচনা করেছে বার্সেলোনা। ঘরের মাঠে পিএসজিকে ৬-১ গোলে উড়িয়ে দেওয়ার সেই ম্যাচের নায়ক নেইমার ইনজুরির কারণে দেপোর্তিভোর বিপক্ষে ছিলেন না। তাতে কি, লিওনেল মেসি আর লুইস সুয়ারেজ তো ছিলেন।

কিন্তু বার্সার ধারাবাহিক দুই তারকা কাল দলের হার এড়াতে পারেননি। প্রতিপক্ষের মাঠে দাপুটে ফুটবলই খেলেছে অবশ্য বার্সেলোনা। লিওনেল মেসি-লুইস সুয়ারেজের যুগলবন্দি দেপোর্তিভোর রক্ষণ কাঁপিয়ে দিয়েছে মাঝে মধ্যেই। কিন্তু শেষ শটটা ঠিকমতো নিতে না পারার আক্ষেপে পুড়তে হয়েছে বার্সেলোনাকে।

লুইস সুয়ারেজ অবশ্য একটা গোল করেছেন দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতে। কিন্তু সেটা বার্সেলোনার জয়ের জন্য যথেষ্ট ছিল না। কারণ ৪০ মিনিটে জুসেলুর গোলে প্রথমে এগিয়ে যায় দোপোর্তিভোই। ৭৪ মিনিটে দেপোর্তিভোকে ২-১ ব্যবাধানে এগিয়ে নেন অ্যালেক্স। এই গোল আর শোধ করতে পারেনি মেসিরা। শেষ পর্যন্ত ২-১ ব্যবধানের হার নিয়ে মাঠ ছাড়তে হয়েছে বার্সাকে।

এদিকে, বার্সার হারের কয়েক ঘন্টা পর মাঠে নেমে রিয়ালকেও কষ্টে জিততে হয়েছে। ঘরের মাঠে খেলা হলেও ম্যাচের ২৪ মিনিটে প্রথমে পিছিয়ে পড়েছিল মাদ্রিদের ক্লাবটিই। কিন্তু এই হতাশা অবশ্য শেষ পর্যন্ত থাকেনি জিনেদিন জিদানের দলের। ৪১ মিনিটে রিয়ালকে সমতায় ফেরান ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদো।

৮১ মিনিটে গিয়ে রিয়ালের পক্ষে জয় সূচক গোলটি করেছেন সার্জিও রমোস। রিয়াল বেটিসের মতো দলের বিপক্ষে ঘরের মাঠে ২-১ গোলের ছোট জয় হয়তো রিয়াল সমর্থকদের অনেকেই মেনে নিতে পারবেন না। কিন্তু বড় একটা স্বস্তিও অস্বীকার করার নয়। এই জয়েরই যে বার্সাকে হটিয়ে আবারো টেবিলের শীর্ষে উঠে বসল রিয়াল মাদ্রিদ।