advertisement
আপনি পড়ছেন

গতকাল হয়ে যাওয়া লিওনেল মেসির বিয়েকে ‘শতাব্দী সেরা বিয়ে’ বলছে আর্জেন্টিনার গণমাধ্যম। আর্জেন্টিনায় এটা নিয়ে আপত্তি তোলার লোক হয়তো খুব বেশি পাওয়া যাবে না। ফুটবল, শোবিজ, রাজনীতিক তারকাদের সমারোহে কিছুতেই কমতি ছিল না মেসির বিয়ের। তবে একটা বিষয় খটকা লেগেছে অনেকের কাছেই। দিয়েগো ম্যারাডোনা দাওয়াত পাননি মেসির বিয়েতে। আর এটা নিয়ে মেসিকে টিপ্পনি কাটতে ছাড়লেন না ম্যারাডোনা।

lionel messi antonella roccuzzo maradona

ইতিহাসের সেরা দুই ফুটবলারের একজন মনে করা হয় ম্যারাডোনাকে। মেসির কোচও ছিলেন আর্জেন্টাইন কিংবদন্তি। ২০১০ সালের বিশ্বকাপে ম্যারাডোনার অধিনেই বিশ্বকাপ খেলেছে মেসির আর্জেন্টিনা। তখন মেসির গুনগানে মুখ দিয়ে রীতিমতো ফেনা উঠতো ম্যারাডোনার।

কিন্তু হুটহাট মন্তব্য করে অভ্যস্ত ম্যারাডোনা আর্জেন্টিনা কোচের চাকরি হারানোর পর মেসিকে নিয়ে বিভিন্ন নেতিবাচক কথা বলেছেন। চিলি এবং জার্মানির বিপক্ষে কোপা আমেরিকা এবং বিশ্বকাপের ফাইনালে হারের পর মেসির যোগ্যতা নিয়েও কথা বলেছিলেন। কয়েক দিন আগে মন্তব্য করেছেন ‘আর্জেন্টিনা দলে যদি রোনালদো থাকতেন’। বিষয়গুলো ভালো লাগার কথা নয় মেসির।

বিয়ের দাওয়াত হয়তো দেননি সেই কারণেই। তাছাড়া কোন কোচকেই অবশ্য বিয়েতে দাওয়াত করেননি মেসি। পেপ গার্দিওলাও মেসির বিয়েতে দাওয়াত পাননি। কেউ এ নিয়ে কিছু বলেনওনি। কিন্তু ম্যারাডোনা তো আর সবার মতো নয়! কিছু বলার সুযোগ পেলে সেটা কি আর ছাড়ার পাত্র আর্জেন্টিনা কিংবদন্তি!

মেসির বিয়েতে আমন্ত্রণ না পাওয়া নিয়ে প্রশ্ন করতেই ম্যারাডোনার জবাব, ‘আমার আমন্ত্রণপত্র নিশ্চয়ই কোথায় হারিয়ে গেছে!’ মেসিকে শুভকামনা জানাতে অবশ্য কার্পণ্য করেননি আর্জেন্টিনা কিংবদন্তি, ‘আমি ওকে অভিনন্দন জানিয়েছি। ও জানে, আমি ওকে কতটা ভালোবাসি।’