advertisement
আপনি পড়ছেন

আসন্ন বিশ্বকাপে দর্শকের ভূমিকায় থাকবেন অনেক তারকা ফুটবলার। এদের মধ্যে একজন গ্যারেথ বেল। যার কখনোই বিশ্বকাপ খেলার অভিজ্ঞতা হয়নি। রিয়াল মাদ্রিদ উইঙ্গারের দুর্ভাগ্য, তার জন্মটা হয়নি বিশ্ব ফুটবলের পরাশক্তি কোনো দেশে।

bale wants to play next world cup

নেইমারের আগে বিশ্বের সবচেয়ে দামি ফুটবলার ছিলেন বেল। তার জন্মভূমি ওয়েলসে। যে দেশটা ৫৮ বছর পর ২০১৬ সালে খেলেছিল ইউরোপিয়ান চ্যাম্পিয়নশিপে। প্রায় একক প্রচেষ্টায় ওয়েলসকে ইউরোর টিকিট এনে দিয়েছিলেন বেল।

কিন্তু বিশ্বকাপ বাছাইপর্বের মঞ্চটা আরো কঠিন। এই কঠিন পথ পাড়ি দিতে পারেনি বেলের ওয়েলস। বাছাইপর্বের বাঁচা-মরার ম্যাচে আয়ারল্যান্ড প্রজাতন্ত্রের বিপক্ষে দলের হারটা ডাগ আউটে বসে দেখেছেন চোটাক্রান্ত বেল। গত বছরের অক্টোবরে তার অনুপস্থিতি পুষিয়ে দিতে পারেননি সতীর্থরা।

তাতেই স্বপ্নের সমাধী হয়ে গেছে ‘হান্ড্রেড মিলিয়নম্যানের’। বিশ্বকাপকে আসন্ন রেখে সেই হতাশাটা নতুন করে সামনে আনলেন বেল। বলেছেন, ‘ইউরোর অভিজ্ঞতা থাকা সত্ত্বেও আমরা বিশ্বকাপে জায়গা করে নিতে পারিনি। এটা আমাদের প্রচণ্ডভাবে হতাশ করেছে।’

কিন্তু বিশ্বকাপে খেলতে না পারার হতাশাটা আরো তৃষ্ণার্ত করে তুলেছে ওয়েলসকে। বেল ছাড়ছেন না হাল, রিয়াল মাদ্রিদ আক্রমণভাগের সারথি খেলতে চান ২০২২ কাতার বিশ্বকাপে। তিনি বলেছেন, ‘আমরা রাশিয়া বিশ্বকাপ মিস করছি। এটাই আমাদের ক্ষুধা বাড়িয়ে দিয়েছে যাতে আমরা পরেরবার বিশ্বকাপ খেলতে পারি।’

তবে স্বপ্ন পূরণের জন্য আরো শক্তিশালী দল গঠনের কথা বললেন, ‘আমাদের আরো শক্তিশালী হতে হবে। যাতে ভবিষ্যতে বাছাইপর্ব এবং বড় টুর্নামেন্টগুলোতে আমরা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় থাকতে পারি।’

অবশ্য বেল তার আশার কথা বলেছেন, কিন্তু তার জন্য হতাশার খবর হচ্ছে বয়সটা ক্রমেই বেড়ে চলছে। কাতার বিশ্বকাপের সময় তার বয়স হবে ৩৩। ক্যারিয়ারের সায়াহ্নে এসে বেল কী পারবেন স্বপ্নের বিশ্বকাপের মঞ্চটা তৈরি করতে? প্রশ্নটা থেকেই যাচ্ছে।