advertisement
আপনি দেখছেন
সর্বশেষ আপডেট: 14 মিনিট আগে

ম্যানচেস্টার সিটিকে টপকে আবারো ইংলিশ লিগ টেবিলের শীর্ষে উঠে এলো লিভারপুল। রোববার ফুলহামকে ২-১ গোলে হারিয়ে জয়ের ধারায় থাকল অল রেডরা। লিভারপুলের জয়ের রাতটা দুঃস্বপ্নটা উপহার দিয়েছে চেলসিকে। লিগের অন্য ম্যাচে এভারটনের মাঠে ২-০ গোলে হেরে গেছে পশ্চিম লন্ডনের ক্লাবটি।

james milner liverpool

এই হারে লিগ তালিকার পাঁচ নম্বরে ওঠার সুযোগ হারাল চেলসি। ৩০ ম্যাচে তাদের অর্জন ৫৭ পয়েন্ট। এক পয়েন্ট বেশি নিয়ে পাঁচে আছে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড। তাদের ওপরে আছে যথাক্রমে আর্সেনাল (৬০), টটেনহাম হটস্পার (৬১) ও ম্যানচেস্টার সিটি (৭৪)। সবার চেয়ে এক ম্যাচ বেশি খেলে ৭৬ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষে উঠেছে লিভারপুল।

ফুলহামের মাঠে ২৬ মিনিটে লিভারপুলকে এগিয়ে দেন সাদিও মানে। এনিয়ে তিন ম্যাচে পাঁচ গোল করলেন সেনেগাল ফরওয়ার্ড। লিগের চলতি আসরে মানের এটা ১৭তম গোল। ৭২ মিনিটে দ্বিতীয় গোলটা পেতে পারতেন তিনি। কিন্তু মানের শটটা ক্রসবারে লেগে ফিরে আসে। একটু পরে লিডটাও হারিয়েছে ইয়ুর্গেন ক্লপের দল।

৭৪ মিনিটে নিজেদের ভুলে স্বাগতিকদের সমতায় ফেরায় লিভারপুল। অল রেড ডিফেন্ডার ভার্জিল ফন ডাইক গোলরক্ষক অ্যালিসন বেকারকে হেড দিয়ে বল পাস করতে চেয়েছিলেন। কিন্তু বল দখলে দিতে পারেননি ব্রাজিলিয়ান তারকা। বল পেয়ে লিভারপুলের জাল কাঁপান ক্লাবেরই সাবেক ডাচ ফরওয়ার্ড রায়ান বাবেল।

ফন ডাইক ও অ্যালিসনের ভুলের প্রায়শ্চিত্ত করেন জেমস মিলনার; ৮১ মিনিটে স্পট কিক থেকে করেন জয়সূচক গোল। অতিথিদের পেনাল্টি পাইয়ে দেন মানে। ডি-বক্সে আফ্রিকান তারকাকে ফেলে দেন ফুলহামের এক ডিফেন্ডার। শেষ দিকে গোল করার সুবর্ণ সুযোগ পেয়েছিলেন মোহাম্মদ সালাহও। কিন্তু স্বাগতিক গোলরক্ষককে একা পেয়েও সুযোগ হাতছাড়া করেছেন মিশরীয় ফরওয়ার্ড।

লিভারপুল জেতার পর অবশ্য সেই আক্ষেপ দূর হয়েছে সালাহর। অল রেডদের জয়ের রাতে সঙ্গী হয়েছে তাদের প্রতিবেশী ক্লাব এভারটন। এদিন গুডিসন পার্কে চেলসিকে হারিয়ে দিয়েছে তারা। দ্বিতীয়ার্ধে দুই গোলে সর্বনাশ হয়েছে চেলসির। লিগের প্রথম পর্বের ম্যাচের মতো এদিন অন্তত পয়েন্ট পেতে পারতো প্রথমার্ধে দুর্দান্ত খেলা ব্লুজরা। কিন্তু প্রথমার্ধের আট মিনিটে হ্যাজার্ডের শট প্রতিহত হয় পোস্টে।

শুধু গোলপোস্টই নয়, পশ্চিম লন্ডনের ক্লাবটির সামনে আরো বড় বাধা হয়ে দাঁড়িয়েছিলেন এভারটন গোলরক্ষক জর্ডান পিকফোর্ড। ম্যাচে চেলসির কয়েকটা আক্রমণই প্রতিহত করে দিয়েছেন ইংল্যান্ডের শেষ প্রহরী। বারবার গোলবঞ্চিত হওয়া অতিথি দলটি দ্বিতীয়ার্ধে উল্টো হজম করে বসে। তাও আবার একটি নয়, দু দুটি! ৪৯ মিনিটে মার্সিসাইড ক্লাবটিকে এগিয়ে দেন রিচার্লিসন। ৭২ মিনিটে ব্যবধান দ্বিগুণ করেন গিলফি সিগুডসন।

sheikh mujib 2020