advertisement
আপনি দেখছেন

চলতি মৌসুমের শুরু থেকেই নিজেদের হারিয়ে খুঁজছে ইংল্যান্ডের তিন ক্লাব টটেনহাম হটস্পার, আর্সেনাল ও ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড। তাতে বলির পাঁঠা হয়েছে প্রথম দুটি ক্লাবের প্রধান কোচ মারিসিও পচেত্তিনো ও উনাই এমেরি। স্বাভাবিকভাবেই চাপে আছেন আছেন ম্যানইউ প্রধান কোচ ওলে গানার সুলশারও।

ole gunnar solskjaer man utd vs aston villa 2019 20

নরওয়ের কোচের ওপর চাপটা ক্রমশ বাড়তে থাকল রবিরাতে অ্যাস্টন ভিলার সঙ্গে ২-২ গোলে ড্র করায়। তাও আবার ঘরের মাঠ ওল্ড ট্রাফোর্ডে। ইংলিশ লিগের চলতি আসরে এটা রেড ডেভিলসদের ষষ্ঠ ড্র। এই হোঁচটে লিগ টেবিলের নয় নম্বরে নেমে গেছে সুলশারের দল।

তাতে আরেক দফা নরওয়েন কোচের বিদায়ের রব উঠেছে। ম্যানইউ প্রধান কোচের ঘুম হারাম হওয়ার উপক্রম। অবশেষে কোচকে নির্ভার করছে ম্যানচেস্টার জায়ান্টরা। জানিয়ে দিয়েছে আপাতত সুলশারকে বাদ দেওয়ার ইচ্ছে নেই তাদের। দলকে স্বরূপে ফেরাতে আরো সুযোগ দেওয়া হচ্ছে তাকে।

ইংলিশ লিগের এই আসরে ১৪ ম্যাচের মাত্র চারটিতে জিতেছে ম্যানইউ। হার চারটিতে। এমন চাপের মধ্যেও ক্লাবের নীতি নির্ধারকদের সমর্থন পাচ্ছেন তিনি। এটা তার জন্য অনেক বড় একটা ইতিবাচক দিক। কিন্তু সুলশারের ওপর কতদিন তারা আস্থা রাখবেন প্রশ্ন উঠছে তা নিয়েও। সামনেই যে দুটি বিগ ম্যাচ।

আগামী বুধবার টটেনহাম হটস্পারের মুখোমুখি হবে ম্যানইউ। শনিবার আবার ম্যানচেস্টার ডার্বি। যেখানে তাদের আতিথেয়তা দেবে লিগের ডিফেন্ডিং চ্যাম্পিয়ন সিটি। ওই ম্যাচ দুটিতে দারুণকিছু করতে না পারলে চাকরি যেতে পারে সুলশারের। খবর ব্রিটিশ মিডিয়ার। এমন অবস্থাতেও অনুপ্রেরণা আছে কোচের জন্য।

কয়েক সপ্তাহ আগেও রেড ডেভিলসদের প্রধান কোচের চাকরিটা সংশয়ের মুখে পড়েছিল। কিন্তু অপ্রতিরোধ্য লিভারপুলের জয়যাত্রা থামিয়ে দিয়ে সেই যাত্রায় টিকে গিয়েছিলেন সুলশার। এবারো কী লিভারপুল ম্যাচের পুনরাবৃত্তি করে চেয়ারটা ধরে রাখবেন তিনি? উত্তরটা বেশি দূরে নয়।