advertisement
আপনি দেখছেন

মাইলফলকটা আগের ম্যাচেই ছুঁতে পারতেন ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদো। কিন্তু পর্তুগিজ তারকাকে বিশ্রাম দিয়েছেন জুভেন্টাস কোচ মারিসিও সারি। রোনালদো ভক্তদের আর অপেক্ষায় রাখলেন ইতালিয়ান কোচ। প্রাণভোমরাকে নামিয়ে দিলেন স্পালের বিপক্ষে। তাতেই ঘটল প্রতীক্ষার অবসান। পেশাদার ফুটবল ক্যারিয়ারে হাজারতম ম্যাচের গণ্ডি ছুঁলেন রোনালদো।

ramsey ronaldo cuadrado

বিশেষ উপলক্ষ্যটা ‘সিআর সেভেন’ রাঙিয়েছেন দারুণ এক গোলে। তার দল জুভেন্টাসও তুলে নিল প্রত্যাশিত জয়। কাল রাতে ইতালিয়ান সিরি’এ লিগের ম্যাচে স্পালের মাঠে জুভরা জিতেছে ২-১ গোলে। এই জয়ে শীর্ষস্থান আরেকটু মজবুত করে নিল তুরিনের বুড়িরা। ২৫ ম্যাচে ৬০ পয়েন্ট জুভদের। এক ম্যাচ কমে খেলা লাৎসিও ৫৬ পয়েন্ট নিয়ে থাকল তালিকার দ্বিতীয়তে। তাদের চেয়ে দুই পয়েন্ট পিছিয়ে তিনে আছে ইন্টার মিলান।

রোনালদো প্রথম গোলটা পেতে পারতেন ম্যাচের শুরুতেই। পাঁচ মিনিটেই রিয়াল মাদ্রিদের প্রাক্তন ফরওয়ার্ড খুঁজে নেন স্পালের জালের ঠিকানা। কিন্তু গোলটা বাতিল হয়ে যায় অফসাইডের কারণে। সেই হতাশা দূর হয়েছে ৩৯ মিনিটে। হুয়ান কুয়াদ্রাদোর পাস থেকে গোল করেন রোনোলদো; এগিয়ে দেন জুভেন্টাসকে। লিগে এনিয় টানা একাদশ ম্যাচে গোল করলেন তিনি।

লিগের চলতি মৌসুমে তার গোল হলো ২১টি। সবমিলিয়ে ক্লাব ক্যারিয়ারে তার গোলসংখ্যা ৬২৬টি। স্পোর্টিং লিসবন, ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড, রিয়াল মাদ্রিদ ও জুভেন্টাসের হয়ে গোলগুলো করেছেন রোনালদো। ক্লাব ক্যারিয়ারে তার ম্যাচ সংখ্যা ৮৩৬টি। জাতীয় দল পর্তুগালের হয়ে তিনি খেলেছেন ১৬৪টি ম্যাচ। যেখানে প্রাপ্তি ৯৯ গোল।

দ্বিতীয়ার্ধের ১৫ মিনিটে ব্যবধান দ্বিগুণ করেন অ্যারন রামসে। আর্জেন্টাইন তারকা পাওলো দিবালার কাছ থেকে বল পেয়ে স্পালের জালে বল জড়ান ওয়েলস মিডফিল্ডার। যদিও একটু পর ডিফেন্ডিং চ্যাম্পিয়নদের একটি গোল ফিরিয়ে দেয় স্পাল। পেনাল্টি থেকে গোল করেন আন্দ্রে পেতানিয়া। ভিএআরের সহায়তা পেনাল্টির সিদ্ধান্ত দিয়েছিলেন রেফারি।

জুভদের জয়ের ব্যবধান বাড়তে পারতো। সেটা হয়নি আবার ম্যাচের প্রান্ত ভাগে রোনালদোর আরেক দুর্ভাগ্যের কারণে। ডি-বক্সের বাইরে থেকে পর্তুগিজ সেনসেশন যে শট নিয়েছিলেন সেটা ফিরে এসেছে স্পালের ক্রসবারে লেগে। তাতে খচখচানি থাকলেও তা মনে রাখেননি রোনালদো। বরং হাসিমুখে বীরদর্পে মাঠ ছেড়েছেন পাঁচবারের বর্ষসেরা ফুটবলার।