advertisement
আপনি দেখছেন

করোনাভাইরাস মহামারি মোকাবেলায় ইউরোপের জায়ান্ট ক্লাবগুলো অনুদান দিচ্ছে। এগিয়ে এসেছেন খেলোয়াড়রাও। তন্মধ্যে অন্যতম বার্সেলোনা ফুটবলাররা। তাদের বেতনের ৭০ ভাগ কেটে নেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে কাতালান ক্লাবটি। এনিয়ে জল অনেকদূর গড়িয়েছে।

lionel messi and luis suarez

স্প্যানিশ মিডিয়াগুলো দাবি করছে, বার্সার সিনিয়র কয়েকজন ফুটবলারই পারিশ্রমিক কেটে নেওয়ার ইস্যুতে আপত্তি তুলেছেন। তা সত্ত্বেও নাকি ক্লাবের নীতিনির্ধারকরা বেতন কাটার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। বার্সা সভাপতি হোসেপ মারিয়া বার্তেমিউ অবশ্য দাবি করেন, অধিনায়ক লিওনেল মেসি ও তার সহকারীদেরই প্রস্তাব ছিল কর্তনকৃত অর্থ করোনা মোকাবেলার তহবিলে দান করার।

এনিয়ে অবশ্য এতদিন মেসিরা কিছু বলেননি। অবশেষে ক্লাবের ফুটবলারদের পক্ষে নীরাবতা ভাঙলেন লুইস সুয়ারেজ। উরুগুয়েন স্ট্রাইকার জানিয়েছেন, বার্সা সভাপতির দাবি সত্যি। করোনাভাইরাস মোকাবেলায় সত্তর শতাংশ পারিশ্রমিক কম নেওয়ার সিদ্ধান্তটা ফুটবলাররাই নিয়েছেন।

এ প্রসঙ্গে শুক্রবার স্পোর্টস ৯৮০কে বার্সা স্ট্রাইকার সুয়ারেজ বলেছেন, ‘বেতন কাটা নিয়ে অনেক কথা হয়েছে, তাতে সত্যিই আমরা ব্যথিত হয়েছি। মানুষ বলেছে যে আমরা নাকি বেতন কেটে নেওয়ার সিদ্ধান্তে আপত্তি জানিয়েছি। কিন্তু এটা ভিত্তিহীন কথা। আমরা ক্লাবের সঙ্গে ঐক্যমতে পৌঁছেছিলাম।’

সুয়ারেজ আরো বলেছেন, ‘আমরা ক্লাবকে বেতন কেটে তা করোনা মোকাবেলার তহবিলে দান করার কথা বলেছি। বেতন কেটে নেওয়ার বিষয়ে কোনো খেলোয়াড়ই আপত্তি করেননি। ক্লাব এবং ফুটবলারদের যৌথ মতামতের প্রেক্ষিতে এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছিল। অধিনায়করা ক্লাব সভাপতিকে প্রস্তাব দিয়েছিলেন এবং তা কেউ প্রত্যাখ্যান করেননি।’

প্রসঙ্গত, করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে বিশ্বব্যাপি মারা গেছেন ৫৩ হাজারেরও বেশি মানুষ। স্পেনেই মৃতের সংখ্যা দশ হাজার ছাড়িয়েছে।