advertisement
আপনি দেখছেন

প্যারিস সেন্ট জার্মেইর (পিএসজির) অবিচ্ছেদ্য অংশ হয়ে উঠেছিলেন থিয়াগো সিলভা। তাকে অনুরোধ করে আরো দুই মাসের জন্য রেখেছিল ফরাসি জায়ান্টরা। পরে চুক্তি নবায়নেরও প্রস্তাব দেওয়া হয়েছিল ব্রাজিলিয়ান ডিফেন্ডারকে। কিন্তু পিএসজিকে হতাশ করেছেন সিলভা।

thiago silva chelsea

তিনি চলে আসলেন চেলসিতে। ইংলিশ ফুটবলে নিয়েছেন নতুন চ্যালেঞ্জ। লন্ডন থেকে উড়ে আসা প্রস্তাবে সিলভা রাজি হওয়ার পর টনক নড়ে পিএসজির। কিন্তু ততক্ষণে দেরি হয়ে গেছে। পশ্চিম লন্ডনের ক্লাবটিকে আর ফেরাতে পারেননি পিএসজির প্রাক্তন অধিনায়ক।

তাই পিএসজির চুক্তি নবায়নের প্রস্তাব ফিরিয়ে দেন ৩৬ বছর বয়সী এই তারকা। তাতেই শেষ হয় আট বছরের মধুচন্দ্রিমা। লম্বা এই সময়ের সিংহভাগই পিএসজিকে নেতৃত্ব দিয়েছেন সিলভা। তার নেতৃত্বে গত মৌসুমে প্রথমবারের মতো চ্যাম্পিয়নস লিগের ফাইনালে ওঠে পিএসজি।

ফরাসি জায়ান্টদের হয়ে জিতেছেন ১১টি ঘরোয়া শিরোপা। সাফল্য এবং অভিজ্ঞতই বলে দিচ্ছে সিলভা পরীক্ষিত সৈনিক। এর চূড়ান্ত প্রতিফলন দেখা যায় ইউরোপিয়ান টুর্নামেন্টের ফাইনালে। সেদিন পিএসজি ১-০ গোলে হারলেও সিলভার পারফরম্যান্স ছিল দুর্দান্ত।

psg french league cup celebration 2020

যা পিএসজি সমর্থকদের শুধুই আফসোসই বাড়িয়েছে। কারণ প্যারিসিয়ানদের হয়ে ওটাই তার শেষ ম্যাচ। ফাইনাল হারের পরদিন চেলসির প্রস্তাবে সাড়া দেন সিলভা। এরপরই পিএসজির ভাবনায় পরিবর্তন আসে। দলটির ক্রীড়া পরিচালক লিওনার্দো চুক্তি নবায়নের প্রস্তাব দেন তাকে।

কিন্তু ততক্ষণে যা হওয়ার হয়ে গেছে। পুরোটা ঘটনাটা মঙ্গলবার রাতে প্রচারমাধ্যমকে বলেছেন, ‘সত্যি বলতে লকডাউনের সময় লিওনার্দো আমাকে ডেকেছিলেন এবং দুই মাসের জন্য চুক্তি নবায়ন করে চ্যাম্পিয়নস লিগ ফাইনাল খেলার প্রস্তাব দেন। আমি বলেছি ঠিক আছে, কোনো সমস্যা নেই।’

পিএসজির সাবেক অধিনায়ক যোগ করেন, ‘আমি রাজি হয়েছিলাম, কারণ আমি এটা (চ্যাম্পিয়নস লিগ মৌসুম) শেষ করতে চেয়েছিলাম। ভেবেছিলাম দুই মাস পর চ্যাম্পিয়নস লিগের পর আমি আর প্যারিসে থাকতে পারব না। তখন আমি আমার প্রতিনিধিকে ভবিষ্যত নিয়ে পরিকল্পনা করি। বিকল্প খুঁজতে থাকি।’

psg french league cup celebration

এই পরিকল্পনার অংশ হিসেবে চেলসিকে প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন সিলভা। ইতি টেনেছেন পিএসজি অধ্যায়ের। সিলভা বলেছেন, ‘ফাইনালের পরদিন আমি প্যারিসে ফিরে আসি এবং লিওনার্দোকে জানাই যে আমি পিএসজি থাকতে চাই। কিন্তু পরদিনই আমি চেলসিকে হ্যাঁ বলে দেই। আমি সত্যিই পিএসজির কাছে কৃতজ্ঞ। আমার এবং আমার পরিবারের জন্য তারা সবকিছু করেছে।’

সিলভার বয়স এখন ৩৬। বুড়িয়ে গেছেন বলেই কিনা চেলসির একাদশে ঠাঁই পাওয়া তার জন্য কঠিন হবে। নিন্দুকদের ভাবনা এমনই। যদিও বয়সকে শুধুই সংখ্যা মনে করেন সিলভা, ‘আমি অনুপ্রাণিত এবং নতুন চ্যালেঞ্জের জন্য প্রস্তুত হচ্ছি। আমার কাছে বয়স শুধুই সংখ্যা। আশা করছি তরুণদের নিয়ে আমি প্রিমিয়ার লিগ চ্যালেঞ্জটা উপভোগ করব।’

সবকিছু ঠিক থাকলে সিলভার চ্যালেঞ্জ শুরু হচ্ছে আজ রাত থেকে। ইংলিশ লিগ কাপের তৃতীয় রাউন্ডের ম্যাচে বার্নসলির বিপক্ষে অভিষেক হচ্ছে তার।

sheikh mujib 2020