advertisement
আপনি দেখছেন

সারা বিশ্বের ভক্তরা দুটি ভাগে বিভক্ত। একদল লিওনেল মেসিকে নিয়ে মাতামাতি করলে অন্যরা ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদো বন্দনায় মেতে থাকেন সারাক্ষণ। ফ্রান্সিসকো ত্রিনকাও অবশ্য পা দিচ্ছেন দুই নৌকাতেই। কাউকে ছোট করতে রাজি নন তিনি। বলছেন, মেসি-রোনালদো ইতিহাসের সেরাদের মধ্যে দুজন।

messi ronaldo 2020লিওনেল মেসি ও ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদো

ত্রিনকাওয়ের দুজনকেই পছন্দ করার পেছনে যথেষ্ট কারণ আছে। তিনি নিজে পর্তুগালের ফুটবলার। ক্লাব পর্যায়ে খেলছেন বার্সেলোনার হয়ে। দুই জায়গায় তার অধিনায়ক আবার মেসি-রোনালদো। কাকে পিছিয়ে রেখে আবার কোন বিপদে পড়েন! তাই কৌশলী অবস্থান নিলেন এই তরুণ উইঙ্গার।

দুইজনকে প্রশংসায় ভাসানোর পেছনে যথার্থ যুক্তি দাঁড় করাচ্ছেন ত্রিনকাও। তার মতে, মেসি-রোনালদোরা আলাদা আলাদা গুণে গুণান্বিত। একজনের সাথে আরেকজনের মিল নেই। স্ব স্ব জায়গা থেকে উভয়েই সেরা। সেই সাথে দাবি করছেন, তাদের মধ্য থেকে বিশেষ কাউকে এগিয়ে রাখলে সেটা অন্যায় হবে।

messi new threeলিওনেল মেসি

মুন্দো দেপোর্তিভোকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে ত্রিনকাও বলেন, ‘মেসি-রোনালদো ইতিহাসের সেরাদের মধ্যে দুজন। মেসিকে ভালোবাসি। সে বাঁ পায়ে দারুণ। রোনালদো আমার স্বদেশি। অসাধারণ একজন ফুটবলার সে। এই দুইজনের মধ্যে সেরা খুঁজতে যাওয়া অন্যায়।’

মেসি বর্তমানে বার্সাতে শান্তি খুঁজে পাচ্ছেন না। একের পর এক অভিযোগ ধেয়ে আসছে তার দিকে। জোসেফ মারিয়া বার্তোমেউ নির্দিষ্ট সময়ের আগে পদত্যাগ করলেও আর্জেন্টাইন তারকার মুখের দিকে তাকিয়ে ভালো কিছু টের পাওয়া দুষ্কর। চলতি মৌসুম শেষে তিনি যে ন্যু ক্যাম্প থেকে তল্পিতপ্পা গুছাবেন তা আর বলার অপেক্ষা রাখে না। ত্রিনকাও অবশ্য আশাবাদীদের দলে। এই পর্তুগীজ মনে করছেন, কাতালানদের জার্সিতে আরও মৌসুম খেলবেন ছয়বারের ব্যালন ডি অর জয়ী।

bad night for ronaldoক্রিশ্চিয়ানো রোনালদো

তিনি বলেন, ‘বার্সাতেই মেসির ক্যারিয়ার শুরু। জায়গাটা ওর আত্মার সাথে মিশে আছে। আমার মনে হয়, সে দীর্ঘদিন এখানেই থেকে যাবে। অভিমান কমতে কতক্ষণ। অন্য কোথাও যাওয়ার চিন্তা বাদ দিতে পারে। তাই ওর সাথে আরও অনেকদিন ড্রেসিংরুম ভাগাভাগি করতে পারবো।’

গত আগস্টের শেষদিকে বার্সা ছাড়ার ঘোষণা দেন মেসি। তাকে দলে ভেড়ানোর দৌড়ে এগিয়ে ছিল ম্যানচেস্টার সিটি, প্যারিস সেন্ট জার্মেইন, ইন্টার মিলানের মতো ক্লাবগুলো। কেউ হয়তো ঘুণাক্ষরেও চায়নি এলএমটেন-সিআরসেভেন একই দলের হয়ে খেলুক। এমনটা হলে কমে যাবে ফুটবলের উত্তেজনা। ত্রিনকাও এই জায়গাটিতেও ভিন্ন চিন্তা পোষণকারী। তিনি খুব করে চাইতেন, তুরিনেই পাড়ি জমাক তাদের অধিনায়ক।

francisco trincaoফ্রান্সিসকো ত্রিনকাও

নিজের আশার কথা বলতে গিয়ে ত্রিনকাও জানান, ‘মেসি যখন বার্সা ছাড়ার ঘোষণা দেয়, আমি খুব আশা করেছিলাম সে যেন জুভেন্টাসে যোগ দেয়। তাহলে সেরা দুইজনকে একসাথে দেখতে পারবো। সেটা আর হলো কই! শেষ পর্যন্ত ন্যু ক্যাম্প ছেড়ে যানেনি তিনি। এখানেই ক্যারিয়ার শেষ করুক। এটাই উচিত কাজ হবে।’

sheikh mujib 2020