advertisement
আপনি দেখছেন

চলতি মৌসুমের উয়েফা চ্যাম্পিয়নস লিগের ফাইনাল ম্যাচ হওয়ার কথা ছিল ইস্তাম্বুলের আতাতুর্ক অলিম্পিক স্টেডিয়ামে। তবে শেষ পর্যন্ত নিজেদের সিদ্ধান্ত বদলে এখন ইউরোপ সেরা হওয়ার মঞ্চের শিরোপা নির্ধারণী ম্যাচটি পর্তুগালের পোর্তোতে আয়োজন করবে উয়েফা।

uefa logo 2

চ্যাম্পিয়নস লিগের ফাইনালের মধ্য দিয়ে গ্যালারিতে দর্শক ফেরাতে চায় উয়েফা। এজন্য ভেন্যুতে পরিবর্তন এনেছে ইউরোপীয়ান ফুটবলের নিয়ন্ত্রক সংস্থা। উয়েফা জানিয়েছে, এবারের চ্যাম্পিয়নস লিগ ফাইনালে গ্যালারিতে উপস্থিত থাকবেন ১২ হাজার দর্শক।

চ্যাম্পিয়নস লিগের ফাইনালে এবার মুখোমুখি হবে ম্যানচেস্টার সিটি এবং চেলসি। স্বাভাবিকভাবেই দুই ক্লাবের সমর্থকরা মাঠে বসে খেলা দেখতে চাইবেন। তবে করোনাভাইরাস সতর্কতায় তুরস্ককে ‘রেড’ জোনে রেখেছে ইংল্যান্ড। ফলে তুরস্কে খেলা হলে দর্শকদের পরিকল্পনা ভেস্তে যেতো। পর্তুগাল আছে ‘গ্রিন’ লিস্টে। ফাইনাল সেখানে হলে দুই ক্লাবের সমর্থকদের কোয়ারেন্টাইনের প্রয়োজন হবে না।

চ্যাম্পিয়নস লিগের ফাইনালের ভেন্যু পরিবর্তন করতে পেরে আনন্দিত উয়েফার সভাপতি আলেক্সান্ডার সেফেরিন। গণমাধ্যমকে তিনি বলেন, ‘সমর্থকদের ম্যাচটি দেখার সুযোগ থেকে বঞ্চিত করা উচিত বলে মনে হয়নি। তাই একটি উপায় খুঁজে পেয়ে আমি অনেক আনন্দিত।’

গতবারও চ্যাম্পিয়নস লিগের ফাইনালের আয়োজক ছিল পর্তুগাল। খেলা হয়েছিল লিসবনে। তবে এবারের শিরোপা নির্ধারণী ম্যাচটি হবে পোর্তোর এস্তাদিও দ্রো দ্রাগাওতে।

চ্যাম্পিয়নস লিগের ফাইনালে জায়গা করে নিতে সিটি এবং চেলসিকে দিতে হয়েছে কঠিন পরীক্ষা। প্রতিযোগিতার শেষ চারে প্যারিস সেন্ট জার্মেই, পিএসজিকে সিটি এবং স্প্যানিশ লা লিগা জায়ান্ট রিয়াল মাদ্রিদকে হারিয়েছে টমাস টুখেলের দল চেলসি।

এর আগেও চ্যাম্পিয়নস লিগের ফাইনাল খেলার অভিজ্ঞতা আছে চেলসির। তবে এবারই প্রথম ইউরোপের মর্যাদাপূর্ণ টুর্নামেন্টের ফাইনালে খেলবে সিটি।