advertisement
আপনি দেখছেন

গত অক্টোবরে প্রধান কোচ পাভেল হেপালকে সরিয়ে দেয় স্লোভাকিয়া। উয়েফা নেশনস লিগের প্লে-অফ ম্যাচে হারের শাস্তি দেওয়া হয় তাকে। অথচ এই কোচই উত্তর আয়ারল্যান্ডের বিরুদ্ধে নাটকীয়ভাবে ম্যাচ জিতিয়ে দলকে এনে দিয়েছেন ইউরোর মূলপর্বের টিকিট। সেই হেপালই এখন থাকছেন ইউরোর দর্শক সারিতে।

euro 2020 slovakia

শুধু প্লে-অফ নয়, কোচকে সরিয়ে দেওয়ার কারণ বিশ্বকাপ বাছাই পর্বে ভালো করতে না পারাটা। স্লোভাকিয়া ড্র করেছে সাইপ্রাস ও মালটার সঙ্গে। তবে রাশিয়ার বিপক্ষে কোনোরকম জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে দলটি। সবমিলিয়ে ইউরোর প্রস্তুতিটা ভালো হয়নি তাদের। গত আসরে প্রি-কোয়ার্টার ফাইনাল খেলা স্লোভাকিয়াকে নিয়ে এবার খুব একটা আশাও নেই। চাপমুক্তভাবে খেলেই প্রথম ম্যাচে চমক দেখিয়েছে তারা। পোল্যান্ডকে হারিয়েছে ২-১ গোলে।

প্রধান কোচ - স্টিফান তারকোভিচ: ২০১৮ সালে প্রধান কোচের পদ থেকে সরে দাঁড়ান জান কোজাক। তার উত্তরসূরি হিসেবে সহকারী কোচ তারকোভিচকে নিয়োগ দিতে স্লোভাকিয়ান ফুটবল অ্যাসোশিয়নকে পরামর্শ দেন কোজাক। যদিও বিদায়ী কোচের কথা শোনেনি এসএফএ। হাপালকে নিযুক্ত করে তারা। আর তারকোভিচকে টেকনিক্যাল ডিরেক্টর হিসেবে নিয়োগ দেয়া হয়।

এক বছর পর হাপালকে সরিয়ে দেওয়া হয়। নাটকীয়ভাবে প্রধান কোচ হন সেই তারকোভিচ। তার পারফরম্যান্সে খুশি হয়েছে অ্যাসোসিয়েন। দলের মধ্যে ঐক্য তৈরি করেন তিনি। আত্মবিশ্বাস ছড়িয়ে দেন শিষ্যদের মাঝে। ভালো করতে থাকা দলটা হঠাৎই পথ হারায়। কার্যত ছন্দে ফেরার লড়াইয়ে আছে স্লোভাকিয়া।

প্রধান অস্ত্র - মারেক হামসিক: স্লোভাকিয়ার পক্ষে সবচেয়ে বেশি ম্যাচ খেলেছেন হামসিক। সর্বোচ্চ গোলদাতাও তিনি। দেশটির ফুটবল ইতিহাসে হামসিককে ভাবা হয় সর্বকালের সেরাদের একজন। শুধু জাতীয় দল নয়, ইতালিয়ান ক্লাব নাপোলির ইতিহাসেরও বড় অংশ হামসিক। এক যুগ এখানে খেলার পর ২০১৯ সালে চাইনিজ ফুটবলে চলে যান তিনি। সেখানেও অবশ্য থিতু হতে পারেননি। সাবেক ক্লাব গোটবর্গে ফিরে আসেন ৩৩ বছর বয়সী এই মিডফিল্ডার। এবারের ইউরোতে স্লোভাকিয়ার মূল ভরসা তিনিই। তাকে ছাড়া স্লোভাকিয়ানদের মধ্যমাঠের কথা ভাবাই যায় না।

তরুণ তুর্কি - টমাস সাসলভ: স্লোভিয়াকার বিস্ময় বালক বলা হয় সাসলভকে। মাত্র ১৮ বছর বয়সে শোরগোল ফেলে দিয়েছেন তিনি। বিদায়ী ক্লাব মৌসুমে গ্রনিগেনের জার্সিতে অভিষেক হয় তার। ডাচ কিংবদন্তি আরিয়েন রোবেন চলে যাওয়ার পর তার শূন্যস্থানে খেলছেন তিনি। সুযোগ পেয়ে দারুণ পারফর্ম করেছেন তিনি। ডাচ লিগের উদীয়মান সেরার স্বীকৃতিও পেয়েছেন সাসলভ। গেল বছরের নভেম্বরে স্লোভাকিয়ার জার্সিতে অভিষেক হয় তার। বেঞ্চ ছেড়ে উঠে এসে ম্যাচ নির্ধারণ করার সামর্থ্য আছে ১৮ বছর বয়সী এই তরুণ তুর্কির।

গ্রুপপর্ব: স্লোভাকিয়ার দুর্ভাগ্য, এবারের ইউরোতে যে কঠিন দুটি গ্রুপ আছে তার একটিতে পরেছে তারা। গ্রুপের আন্ডারডগ তারা। গ্রুপপর্বে তাদের তিন প্রতিদ্বন্দ্বী শক্তিশালী স্পেন, সুইডেন ও পোল্যান্ড। ‘ই’ গ্রুপের মৃত্যুকূপে পরায় স্লোভাকিয়ার নক আউট পর্বে যাওয়ার সম্ভাবনা খুব কমই ছিল। কিন্তু প্রথম ম্যাচেই সবাইকে ভড়কে দিয়েছে তারা। শক্তিশালী পোল্যান্ডকে হারিয়ে নকআউটের সম্ভাবনা বাড়িয়েছে তারা।

সম্ভাব্য একাদশ: গোলরক্ষক: দুবরাভকা; ডিফেন্ডার: পেকারিক, ভাভরো, স্ক্রিনিয়ার, হ্যাঙ্কো; মিডফিল্ডার: হ্রোসভস্কি, কুচা, হামসিক; ফরওয়ার্ড: ডুডা, বোজেনিক, রুসনাক।

সেরা সাফল্য: প্রি-কোয়ার্টার ফাইনাল (২০১৬)

ফিফা র্যাঙ্কিং: ৩৬

স্লোভাকিয়া ম্যাচসূচি:

১৪ জুন: পোল্যান্ড ১-২ স্লোভাকিয়া (সেন্ট পিটার্সবার্গ স্টেডিয়াম, সেন্ট পিটার্সবার্গ)
১৮ জুন: সুইডেন-স্লোভাকিয়া (সেন্ট পিটার্সবার্গ স্টেডিয়াম, সেন্ট পিটার্সবার্গ)
২৩ জুন: স্লোভাকিয়া-স্পেন: (এস্টাডিও লা কারতুজা স্টেডিয়াম, সেভিয়া)